ব্রেকিং:
কুমিল্লায় ঘরে ঘরে হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ কুমিল্লায় প্রাইভেটকার খালে, স্বামী-স্ত্রীসহ নিহত ৩ রোগ-ব্যাধি ও বিপদ-আপদ থেকে মুক্তির দোয়া নজরদারিতে গুজব সৃষ্টিকারীরা করোনায় অর্ধশত বাংলাদেশির মৃত্যু কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত ছেয়ে গেছে সাগরলতায় ত্রাণ নিয়ে অনিয়ম-দুর্নীতি সহ্য করা হবে না: প্রধানমন্ত্রী করোনা নিয়ে গুজব ছড়াচ্ছে জেকে ব্রেকিং নিউজসহ বেনামি নিউজ পোর্টাল! কুমিল্লায় হোম কোয়ারেন্টাইনের সংখ্যা কমছে: আছে ১ হাজার ৬০ জন পাঁচ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান নগরীর সংরাইশে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা ঘরে থাকা অসহায়-কর্মহীন মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ সদরের নিশ্চিন্তপুরে যুবকের ঝুঁলন্ত লাশ উদ্ধার বরুড়ায় করোনা প্রতিরোধে মাস্ক বিতরণ ও জীবাণুনাশক স্প্রে প্রদান কর্মহীন পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী দিলেন কানাডা প্রবাসী ১৫ হাজার অসহায় পরিবারকে দেয়া হবে খাদ্য সহায়তা কুমিল্লায় ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় বৃদ্ধ নিহত কুমিল্লায় গৃহপরিচারিকা ধর্ষণ মামলার আসামি গ্রেফতার ৮ হাজার পরিবারকে খাবার দিল কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন ৫০০ পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী দিলেন হিরো আলম
  • মঙ্গলবার   ৩১ মার্চ ২০২০ ||

  • চৈত্র ১৭ ১৪২৬

  • || ০৬ শা'বান ১৪৪১

১০

অবৈধ ড্রেজার দিয়ে চলছে মাটি কাটার মহোৎসব

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ২৫ মার্চ ২০২০  

কুমিল্লার মুরাদনগরে অবৈধ ড্রেজার দিয়ে চলছে মাটি কাটার মহোৎসব। এতে বিলীন হতে চলছে উপজেলার তিন ফসলি জমি। উপজেলার ২২ ইউনিয়নে প্রায় তিন শতাধিক ড্রেজার প্রতিনিয়ত কৃষি ও সরকারী খাল-বিল থেকে মাটি কাটছে। অপর পক্ষে এ মাটি যাচ্ছে বিভিন্ন ইটভাটা ও পুকুর ভরাটের কাজে। নিরুপায় হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় ৩০জন জমির মালিক ইউএনও এবং এসিল্যান্ড বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে মাঝে মধ্যে মাঠে গেলে ব্যাবসায়ীরা ড্রেজার চালানো কয়েক ঘন্টা বন্ধ রাখলেও প্রশাসন চলে গেলে আবার পুনরায় শুরু করে অবৈধ ড্রেজিংয়ের মহোৎসব।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বাঙ্গরা পশ্চিম ইউনিয়নের ধনপতিখলা, কালারাইয়া, দীঘিরপাড়, বাঙ্গরা পূর্ব ইউনিয়নের খামার গ্রাম, বিষ্ণপুর, রামচন্দ্রপুর উত্তর ইউনিয়নের ব্রা?হ্মন চাপিতলা, যাত্রাপুর ইউনিয়নের মোচাগড়া, যাত্রাপুর, রঘুরামপুর, ভবানীপুর, কাশিপুর, সিংহারিয়া, টনকি ইউনিয়নের টনকি, বাইড়া, চাপিতলা ইউনিয়নের শ্রীরামপুর, চাপিতলা, পুস্করিনীর পাড়, শ্রীকাইল ইউনিয়নের রোয়াচালা, সোনাকান্দা, পেন্নই, কামাল্লা ইউনিয়নের কামাল্লা, নোয়াগাঁও, নেয়ামতপুর, আসনপুর, কামারচর, নবীপুর পশ্চিম ইউনিয়নের রামধনীমুড়া, মুরাদনগর সদর ইউনিয়নের ধনীরামপুর, ইউসুফ নগর, নেয়ামতপুর, পূর্বধইর পশ্চিম ইউনিয়নের হাটাশ, খৈয়াখালী, রামচন্দ্রপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের কৈজুরীসহ উপজেলার ৩১২টি গ্রামের মধ্যে প্রতিটি গ্রামের কোন না কোন স্থানে ড্রেজার মেশিন চলে। মাইলের পর মাইল পাইপ সংযোগ দিয়ে ড্রেজিংয়ের মাটি পকুর ভরাট ও ইটভাটায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। মুরাদনগর উপজেলা ৫৬ বর্গকিলো মিটারের মধ্যে আবদ্ধ। এরই মধ্যে বৈধ অবৈধ মিলিয়ে ৭২টি ইটভাটা রয়েছে। গ্যাস ফিল্ড রয়েছে ৪টি। গ্যাস উত্তোলনে মাটির স্তর নীচে নেমে যাচ্ছে। অপর দিকে ইটভাটাগুলো মাটির উর্বরের অংশ কেটে নিচ্ছে। অবৈধ ড্রেজিংয়ের কারণে ৫০/৬০ ফুট গভীর থেকে মাটি ও বালি উত্তোলনের কারণে আশ-পাশের তিন ফসলের জমিগুলো কূপে পরিণত হচ্ছে।  

ক্ষতিগ্রস্ত ধনপতিখোলা গ্রামের কৃষক হাজী আব্দুর রহমান খান, ফিরোজ মিয়া, ওমর আলী, হোসেন মিয়া, মহিউদ্দিন খান, কালিপদ সাহা, হারুণ মিয়া ও হাবিব মিয়া বলেন, ‘গত ১৮ মার্চ ইউএনও বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। তিনি যদি তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা না নেন তাহলে আমাদের সর্বনাশ হয়ে যাবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে অন্তত: ৯ জন ব্যক্তি বলেন, প্রশাসনের লোকজন আসার আগেই কিভাবে যেন তারা টের পায়। মেশিনপত্র বন্ধ করে চলে যায়। পরক্ষণে প্রশাসনের লোকজন চলে গেলে তারা আবারো মাটি কাটার উৎসবে মেতে ওঠে। পুলিশ চাইলে ড্রেজার ব্যবসায়ীদের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করতে পারে। কিন্তু ড্রেজার ব্যবসায়ী ও পুলিশের মধ্যে চোর-পুলিশ খেলাটা সকলের মধ্যে সন্দেহের কারণ। কেননা পুলিশ আসার আগেই ড্রেজার ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। গণমাধ্যম কর্মীদের নিকট তাদের দু:খের কথা বলতে গিয়ে অনেক কৃষক কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

তারা আরো বলেন, খামার গ্রামের সৌকত আলী কালারাইয়া মৌজায় ৪ বিঘা জমি নিয়ে ড্রেজার বসিয়ে গভীর ভাবে মাটি কাটার কারণে তাদের তিন ফসলী জমি ড্রেজিং গর্তে বিলীন হয়ে গেছে। ৪ বিঘা জমি এখন ১০ বিঘায় পরিনত হয়েছে। কেউ ইচ্ছা করে জমি দিতে না চাইলেও শেষ পর্যন্ত ড্রেজার মালিকদের নিকট কমমূল্যে জমি ছেড়ে দিতে বাধ্য হয় তাদের সিন্ডিকেটের কাছে। সিন্ডিকেট জমির মালিকদের বিভিন্ন ভাবে হুমকি-ধমকি দিয়ে জিম্মি করে রাখে।

বিষয়টির ব্যাপারে অভিযুক্ত অবৈধ ড্রেজার ব্যবসায়ী সৈকত আলীর সাথে মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও মোবাইল ফোন রিসিভ না করায় কথা বলা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে বাঙ্গরা বাজার থানার ওসি কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, আমরা বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ড্রেজার বন্ধ করার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাইন উদ্দিন আহম্মেদ সোহাগ বলেন, আমি উদ্ধিগ্ন ও আতংকিত। কেননা তিন ফসলি জমির টপসয়েল্ট (উর্ভর মাটির উপরের অংশ) ব্যাপক হারে কেটে নিচ্ছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে আগামী ৬ মাসের মধ্যে চাষাবাদের জন্য একখন্ড জমি থাকবে না। অথচ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে কড়া ভাবে নিষেধাজ্ঞা আছে জমির মাটি কেটে নিয়ে অন্য কোন কাজে ব্যবহার করা যাবে না।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় চাষাবাদযোগ্য জমির পরিমাণ২৪ হাজার ২৯৩ হেক্টর। এর মধ্যে বেশির ভাগই দুই থেকে তিন ফসলি জমি। অথচ সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিলের এক প্রান্ত থেতে অপর প্রান্ত পর্যন্ত অনাবাদী রয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অভিষেক দাশ বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের অভিযোগের ভিত্তিতে কিছু ড্রেজার বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে এবং ড্রেজার বন্ধে সব রকমের প্রদক্ষেপ অব্যাহত রয়েছে।
 

কুমিল্লার ধ্বনি
কুমিল্লার ধ্বনি
কুমিল্লা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর