ব্রেকিং:
ভোট কেন্দ্রে ৩ ঘন্টায় একটি ভোটও পড়েনি বন্ধ রাস্তা খুলে দেয়ার দাবিতে মানববন্ধন লীগের তথ্য ও গবেষণা উপ-কমিটিতে কুমিল্লার ৪ তরুণ ঐতিহাসিক ‘৭ মার্চ’ উদযাপনে হঠাৎ বিএনপির বোধদয় কেন? নেশার টাকা না পেয়ে মাকে মেরেই ফেললেন পাপিয়া কুমিল্লার ঠাকুরপাড়ায় বড় ভাইয়ের প্রেমের বলি ছোট ভাই ! করোনায় আরো ৮ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩৮৫ মেট্রোরেলের প্রথম ধাপ দৃশ্যমান ভাসানচর পরিদর্শনে যাচ্ছে ওআইসির প্রতিনিধি দল বদলে যাবে এসিআর, আসছে এপিএআর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি গাড়ি ও বাড়ি ক্রয়ে নিষেধাজ্ঞা আসছে ইচ্ছেকৃত ঋণখেলাপিদের জিএসপি প্লাস সুবিধা আদায়ে প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে ১৭ দিনে টিকা নিয়েছেন প্রায় ৩০ লাখ মানুষ আধুনিক বিশ্বের মতো উন্নত বিদ্যুৎ ব্যবস্থায় যাচ্ছে দেশ মুজিববর্ষে অনন্য মাইলফলকে দেশ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সেপটিক ট্যাংক বিস্ফোরণে ৫ জন আহত মাদরাসাছাত্রীকে বিবস্ত্র ভিডিও ধারণ-একাধিকবার ধর্ষণ, গ্রেফতার ২ ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভায় শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ চলছে দেশে মেডিকেলে ভর্তিতে আসন বাড়ছে ২৮২
  • সোমবার   ০১ মার্চ ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ১৭ ১৪২৭

  • || ১৬ রজব ১৪৪২

আন্দোলন নামতে অনীহা বিএনপির, চটেছেন তারেক রহমান

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ১৭ জানুয়ারি ২০২১  

দীর্ঘ ১৪ বছর ধরে নিষ্ক্রিয় অবস্থায় রয়েছে বিএনপি। আন্দোলন তো দূরের কথা, ঘর থেকে খুব একটা বের হতে দেখা যায়নি বিএনপি নেতাদের। এমনকি গুলশান বাসায় বসে থাকা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে অবমুক্ত করতেও রাজপথে নামতে সায় নেই দলের অধিকাংশ নেতার। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে সিনিয়র নেতাদের ওপর চটেছেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, ১৩ই জানুয়ারি বিএনপির জুম মিটিংয়ে, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দলের মহাসচিবসহ কয়েক সিনিয়র নেতার কাছে ক্ষুব্ধকণ্ঠে জানতে চান – কেন খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য রাজপথের আন্দোলন শুরু করা যাচ্ছে না? তখন তারা তারেক রহমানকে জানান, দলের বিশাল নির্বাহী কমিটির অধিকাংশ নেতাই রাজপথের আন্দোলনে সায় দিচ্ছেন না। এমনকি দলের স্বাভাবিক কর্মসূচিতেও তারা আসতে চান না। আর নেতারা যদি আন্দোলনে সায় না দেন তাহলে কর্মীদের কীভাবে মাঠে নামানো যাবে? নেতাদের এমন কথা শুনে খানিটা চিন্তিত হয়ে পড়ে তারপরও তারেক রহমান যত দ্রুত সম্ভব খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য আন্দোলন শুরু করার তাগিদ দেন।

আন্দোলনের বিষয়ে তারেক রহমানের ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ার পরও দলের বিভিন্ন স্তরের নেতার সঙ্গে রাজপথের আন্দোলন কর্মসূচি শুরুর বিষয়ে আশানুরূপ সাড়া পাওয়া যায়নি। ১৫ই জানুয়ারি বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলীয় এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, খালেদা জিয়াকে আন্দোলনের মাধ্যমে মুক্ত করতে না পারা আমাদের দুর্ভাগ্য। কারণ, আমরা তার মুক্তির জন্য এখন পর্যন্ত কিছুই করতে পারিনি।

তবে মির্জা ফখরুলের বক্তব্যকে হাস্যকর বলে আখ্যায়িত করে তারেকপন্থী নেতা রুহুল কবির রিজভী বলেন, দুর্ভাগ্যের কথা বলে কখনো জনসমর্থন পাওয়া যায় না। বরং দুর্ভাগ্যের কথা বলে তিনি লোক হাসাচ্ছেন। এমন প্রেক্ষাপটে মির্জা ফখরুলের উচিত চুপ করে থাকা।

এদিকে, মির্জা ফখরুলের মতো রাজপথে অনাগ্রহ গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের বক্তব্যেও প্রকাশ পেয়েছে, দলের নেতাদের রাজপথের আন্দোলনে অংশ নেয়ার আগ্রহ নেই। দলের নেতাদের মধ্যে অনেকেরই আন্দোলনে সায় না থাকায় খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য দল থেকে আন্দোলন কর্মসূচি নাও হতে পারে।

কুমিল্লার ধ্বনি