ব্রেকিং:
সংবিধান অনুযায়ী জাতীয় নির্বাচন হবে: ওবায়দুল কাদের রেলের ভাড়া সমন্বয় শিগগিরই: রেলমন্ত্রী সংকট নিরসনে জ্বালানি তেল আমদানিতে আগ্রহ বিশ্ববাজারে আরো কমল জ্বালানি তেলের দাম বিদ্যুৎ-জ্বালানি তেল-গ্যাস ব্যবহারে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে জ্বালানি তেলের দাম পুনরায় সমন্বয় করা হবে মাসখানেক পরই লোডশেডিং ঠিক হয়ে যাবে: পরিকল্পনামন্ত্রী পেঁয়ারা গাছের ডাল কাটাতে গিয়ে নিথর হলো ইফরাত নোয়াখালীতে স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা গ্রেফতার আওয়ামী লীগ বিএনপির ওপর কোনো অত্যাচার করেনি: তোফায়েল আহমেদ বাংলাদেশকে আরো ১৫ লাখ টিকা দিলো যুক্তরাষ্ট্র মালয়েশিয়া পৌঁছেছে ৫৩ বাংলাদেশি কর্মীর প্রথম ফ্লাইট কুমিল্লায় পৃথক দুটি স্থানে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু ফেনীতে ৩০ লাখ টাকার ইয়াবাসহ যুবক আটক নোবিপ্রবির প্রথম নারী অধ্যাপক ড. নাহিদ আক্তার নোয়াখালীতে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত ৪ পরিবারের পাশে এমপি একরাম বৃদ্ধের ব্যাগে মিললো ৪০ লিটার চোলাই মদ মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ বিক্রি, নোয়াখালীতে দুই ফার্মেসিকে জরিমানা ট্রাক মালিকদের ধর্মঘট প্রত্যাহার, ধান পরিবহনে বাড়লো ভাড়া ফেনীতে রেলের ডিজেল চুরি, আসামির স্বীকারোক্তি
  • বুধবার   ১০ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ২৬ ১৪২৯

  • || ১১ মুহররম ১৪৪৪

ঈশ্বরচন্দ্রের বিধবা বিবাহ প্রথার বিরুদ্ধে ছিল ৩৬ হাজার মানুষ

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ২৯ জুলাই ২০২২  

বাংলা গদ্যের প্রথম সার্থক রূপকার ছিলেন ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর। তিনি ছিলেন একাধারে বাঙালি শিক্ষাবিদ, সমাজসংস্কারক ও প্রাবন্ধিক। ১৮২০ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর মেদিনীপুর জেলার বীরসিংহ গ্রামে এক দরিদ্র ব্রাহ্মণ পরিবারে তার জন্ম।

ছোটবেলায় শিক্ষার প্রতি তার ছিল গভীর আকর্ষণ। তবে রাতে ঘরে আলো জ্বালানোর মতো সামর্থ্য না থাকায় রাস্তায় লাইটের নিচে বসে পড়ালেখা চালিয়েছেন তিনি। এরপর গ্রামের পাঠশালা থেকে সংস্কৃত শিখে তার বাবার সঙ্গে চলে যান কলকাতায়। বাংলা, সংস্কৃতি ও ইংরেজি ভাষায় অগাধ পাণ্ডিত্যের জন্য সংস্কৃতি কলেজ থেকে ১৮৩৯ সালে তাকে ‘বিদ্যাসাগর’ উপাধি দেয়া হয়।

এদিকে তখনকার দিনে নারীদের শিক্ষার বিষয়টি মারাত্মক অবহেলিত ছিল। তার অক্লান্ত পরিশ্রমে তখন নারীদের জন্য ৩৫টি বিদ্যালয় স্থাপিত হয়। এ ছাড়াও সনাতন (হিন্দু) ধর্মে বিধবা বিয়ে নিষেধ, কোনো কোনো ক্ষেত্রে যখন বিধবাদের স্বামীর চিতায় জীবন্ত পুড়িয়ে মারা হতো, তখন এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হয়েছিলেন ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর। এ নিয়ে পরবর্তীতে তার অক্লান্ত প্রচেষ্টায় ‘বিধবা বিবাহ’ আইন পাস হয়। 

এ ছাড়াও বিধবা বিবাহকে আইনসংগত করার জন্য যে আবেদনপত্র দাখিল করা হয়েছিল, তাতে স্বাক্ষর করেছিলেন ৯৮৭ জন ব্যক্তি। আর এ আবেদনের বিরোধিতাকারী পাল্টা আবেদনপত্রে স্বাক্ষর করেছিলেন প্রায় ৩৬ হাজার ব্যক্তি। এত বাধার পরও জয় হয়েছিল ঈশ্বরচন্দ্রের। শুধু প্রতিবাদ করেই ক্ষান্ত হননি, এ প্রথা বাতিল করাতেও সক্ষম হন তিনি। হিন্দু নারীদের কেবল স্বামীর দাসী হিসেবে বিবেচনার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে, মানুষ হিসেবে বিবেচনা এবং বিধবা বিয়ে চালু করতে অনবদ্য ভূমিকা রেখেছেন তিনি।

এ ছাড়া সমাজসংস্কারক, শিক্ষাবিদ পরিচয়ের অন্তরালে থেকে গেছে তার হোমিওপ্যাথি-চর্চা। পুরোদস্তুর ডাক্তারবাবুর ভূমিকায় তাকে পেয়েছিলেন এলাকার আদিবাসী মানুষজন। বাড়ির বৈঠকখানাই ছিল তার অবৈতনিক ডিসপেনসারি। বিদ্যাসাগরের হোমিওপ্যাথি চর্চার ডায়েরি রয়েছে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের পরিবারে। 

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর বাংলা লিপি সংস্কারের মাধ্যমে সহজপাঠ্য করে তুলেছেন। তিনি বাংলা বর্ণমালা পুনর্গঠনে বিশেষ ভূমিকা রাখেন। তার অবদানে, বাংলা বর্ণমালায় ১২টি স্বরবর্ণ এবং ৪০টি ব্যঞ্জনবর্ণে রূপান্তর হয়। তিনিই প্রথম বাংলায় যতি চিহ্নের প্রচলন ঘটিয়েছিলেন। 

বিবিসি বাংলার ‘সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি কে?’ জরিপে শ্রোতাদের মনোনীত শীর্ষ ২০ বাঙালির তালিকায় অষ্টম স্থানে আছেন ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর। তিনি যে শুধু বাংলা ভাষাকে যুক্তিগ্রাহ্য ও সবার বোধগম্য করে তুলেছিলেন তাই নয়, তিনি ছিলেন বাংলার শিক্ষা ব্যবস্থা এবং বাঙালি সমাজে প্রগতিশীল সংস্কারের একজন অগ্রদূত। ১৮৯১ সালের ২৯ জুলাই এ মহান সংস্কারকের জীবনাবসান ঘটে।