ব্রেকিং:
দুধে ভেজাল আছে কি-না পরীক্ষা করুন এই উপায়ে অবৈধ ডিটিএইচ সংযোগ ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে সরানোর নির্দেশ বরখাস্ত হলেন কাউন্সিলর সাঈদ শাহ আমানতে সাড়ে ছয় কোটি টাকার সোনার বার উদ্ধার যুবলীগের বয়স নিয়ে সিদ্ধান্ত গণভবনে: কাদের আওয়ামীলীগ নেতার উপর বর্বরোচিত হামলা সবার আগে দৃষ্টি দুই নারী ব্যবসায়ীসহ গ্রেফতার ৫ চালকদের ডোপ টেস্ট করেছে হাইওয়ে পুলিশ অবৈধ ড্রেজার মেশিন দিয়ে মাটি উত্তোলনে জরিমানা বেতন ভাতা উন্নীতকরণের দাবিতে মানববন্ধন শাসনগাছার খাজা হোটেলকে জরিমানা এ সমস্যা সমাধানে সম্মিলিত প্রচেষ্টা জরুরী গোপন অভিযানে চোরাইচক্রের মূল হোতা আটক পাঠক শূন্য কুমিল্লার পাঠাগার বাবাকে বাঁচাতে কুবি শিক্ষার্থীর আকুতি অবৈধ ড্রেজার মেশিনে হুমকীর মুখে সরকারি খাল নবাগত ওসি’র চমক, এক রাতেই ৯ পলাতক আসামি আটক স্কাউটিংই পারে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে গড়ে তুলতে থানার পাশেই অবৈধ অস্ত্র

শনিবার   ১৯ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৩ ১৪২৬   ১৯ সফর ১৪৪১

কুমিল্লার ধ্বনি
৯৪৬

কাজ ছাড়াই টাকা বাগিয়ে নিল ঠিকাদার

প্রকাশিত: ৮ অক্টোবর ২০১৯  

বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। কমপ্লেক্সটির তৃতীয় শ্রেণির একটি আবাসিক ভবন সংস্কারের জন্য পাঁচ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয় স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর। কিন্তু কাজ না করেই টাকা তুলে নেয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

এমনি অভিযোগ উঠেছে খুলনার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স স্বাদ এন্টারপ্রাইজের বিরুদ্ধে।

হাসপাতালের তথ্যমতে, তৃতীয় শ্রেণির আবাসিক ভবনটির সংস্কারের জন্য চলতি বছরের এপ্রিল মাসে পাঁচ লাখের অধিক টাকা বরাদ্দ দেয় খুলনা স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর। সংস্কার কাজের দায়িত্ব পায় মেসার্স স্বাদ এন্টারপ্রাইজ। পরবর্তীতে ঠিকাদারের লোকজন ভবনের ভেতর ও বাইরের দেয়ালে কোনো রকম রঙ-তুলির আঁচড় দিয়ে পানি-বিদ্যুৎসহ গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো না করেই চলে যায়। বিষয়টি ওই ভবনের স্বাস্থ্য সহকারী ডাক্তার মো. আসলাম হোসেন জমাদ্দার সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলী ও ঠিকাদারকে জানান।

এ সময় তারা বলেন, চিন্তার কোনো কারণ নেই, নিয়মানুযায়ী ভবনের সব কাজ করে দেয়া হবে। কিন্তু মিথ্যা আশ্বাসে সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীর যোগসাজশে পুরো বিল তুলে নেয় ঠিকাদার।

ডাক্তার আসলাম হোসেন বলেন, ভবনটির কাজ না করায় পরিবার-পরিজনকে বৃষ্টির পানি থেকে বাঁচাতে ব্যক্তিগত ২০-২৫ হাজার টাকা খরচ করতে হয়েছে। এছাড়া থাকার কোনো পরিবেশ ছিল না।

স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার মো. জামাল হোসেন শোভন বলেন, সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার কাজ বুঝিয়ে দেয়নি। এছাড়া তারা হাসপাতাল কতৃপক্ষের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করেননি।

এ বিষয়ে জানতে ঠিকাদারের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি। 

প্রকৌশলী মো. এনামুল হক তালুকদার বলেন, ভবনটির কাজ সঠিকভাবে করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে ঠিকাদারের কোনো গাফিলতি নেই। ভবনটিতে যারা থাকেন তাদের অভিযোগ সঠিক নয়।

সিভিল সার্জন জিকে শামসুজ্জামান বলেন, অনেক ঠিকাদার কাজে নানা অনিয়ম করে থাকেন। এমনকি কাজ বুঝিয়ে না দেয়াসহ কাগজপত্রে সাক্ষর পর্যন্ত নেয় না। তবে বিষয়টির খোঁজখবর নেয়া হবে।

কুমিল্লার ধ্বনি
কুমিল্লার ধ্বনি
এই বিভাগের আরো খবর