ব্রেকিং:
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না: আইনমন্ত্রী মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখায় জরিমানা গুনলো দুই ফার্মেসি ঝরে পড়া শিশুদের পাঠদানে ফেরাতে প্রশিক্ষণ দম্পতিকে শৌচাগারে আটকে রাখায় আত্মহত্যা চেষ্টা সরকারি ভবনে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সাশ্রয়ী ব্যবহারের নির্দেশনা জারি প্রত্যাবাসন নিরাপদ না হলে আবারো ফেরত আসবে রোহিঙ্গা ৪০ বছরের মধ্যে যুক্তরাজ্যের মূল্যস্ফীতি সর্বোচ্চ শিক্ষার্থীদের হেনস্তা করায় কুমিল্লায় ট্রেন আটকে প্রতিবাদ ইউক্রেন সফরে আসছেন এরদোগান ও গুতেরেস প্রেমের টানে বগুড়ায় এসে ধর্ষণের শিকার, গ্রেফতার ২ রাশিয়া থেকে জ্বালানি তেল কেনার উপায় খোঁজার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা ওয়াসার কর্মীদের উৎসাহ বোনাসে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা দেশে অপুষ্টিতে ভুগছেন ১ কোটি ৭০ লাখ বিবাহিত নারী জনপ্রিয় হচ্ছে ট্রেতে চারা রোপণ আখাউড়ায় ৫ পলাতক আসামি গ্রেফতার ফেনীতে সাজাপ্রাপ্ত আসামিসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী ধরা ডিমের দাম ১ টাকা বেশি নেয়ায় হাজার টাকা জরিমানা ২ হাজার ৫০৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ৬ প্রকল্পের অনুমোদন পণ্যের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে কাজ করছে সরকার: বাণিজ্যমন্ত্রী তেলের দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্তের বৈধতা প্রশ্নে হাইকোর্টের রুল
  • বুধবার   ১৭ আগস্ট ২০২২ ||

  • ভাদ্র ৩ ১৪২৯

  • || ১৯ মুহররম ১৪৪৪

কুমিল্লায় চাহিদার তুলনায় ৩ লাখ ৯ হাজার ৮৮৯ টন খাদ্য উদ্বৃত্ত

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ৪ আগস্ট ২০২২  

জেলার চাহিদার তুলনায় ৩ লাখ ৯ হাজার ৮৮৯ মেট্রিক টন বেশি খাদ্য উৎপাদন করেছে। কুমিল্লা সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে, ২০১১-২২ অর্থ বছরে জেলায় চাল, ভূট্টা এবং গমসহ মোট দানাদার খাদ্যের চাহিদা ছিলো ১০ লাখ ৫৭ হাজার ৯১৪ মেট্রিক টন। জেলায় এসব খাদ্য উৎপাদিত হয়েছে ১৩ লাখ ৬৭ হাজার ৮০৩ মেট্রিক টন। কুমিল্লা জেলায় এই বৈচিত্র্যময় ফসল এবং বিশাল খাদ্য উদ্বৃত্তের জন্য কৃষকদের অবদান সবচেয়ে বেশি বলে জানিয়েছেন জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মিজানুর রহমান।
তিনি বুধবার সকালে বাসসকে জানান, কুমিল্লায় আবাদি জমি রয়েছে ১ লাখ ৯৪ হাজার ১২২ হেক্টর। কৃষকদের অসামান্য অবদান এবং কৃষি বিভাগের সচেষ্ট থাকার ফলে আমরা লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যেতে পেরেছি। জেলার ৬২ লক্ষাধিক মানুষের খাদ্যের যোগান দেয়ার পর কুমিল্লা থেকে এসব উদ্বৃত্ত খাদ্য যাচ্ছে দেশের অন্যান্য জেলায়। এছাড়া কিছু কিছু ফসল বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে।  
জেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, জেলায় বোরো আবাদ হয়েছে ১ লাখ ৬১ হাজার ২৯১ হেক্টর জমিতে, উৎপাদন হয়েছে ৬ লাখ ৮১ হাজার ৭৯৮ মেট্রিক টন। আউশের ৭৫ হাজার ৫২৫ হেক্টর জমিতে ২ লাখ ২৩ হাজার ৬১২ মেট্রিক টন, রোপা আমন ১ লাখ ১৫ হাজার ৩০৭ হেক্টর জমিতে ৩ লাখ ২৫ হাজার ৪০৭ মেট্রিক টন, বোনা আমন ২১ হাজার ১৭০ হেক্টর জমিতে ২৪ হাজার ৯৮০ মেট্রিক টন উৎপাদিত হয়েছে। অর্থাৎ ৩ লাখ ৭৩ হাজার ২৯৩ হেক্টর জমিতে ১২ লাখ ৫৫ হাজার ৭৯৭ মেট্রিক টন চাল উৎপাদিত হয়েছে। ১ হাজার ২৯৮ হেক্টর জমিতে গম উৎপাদিত হয়েছে ৩ হাজার ৫৯৬ মেট্রিক টন।  ১১ হাজার ৪৭৪ হেক্টর জমিতে ১ লাখ ৮ হাজার ৪১০ মেট্রিক টন ভুট্টা উৎপাদিত হয়েছে। ১০ হাজার ৯৮১ হেক্টর জমিতে ২ লাখ ৫৮ হাজার ৬০২ মেট্রিক টন আলু উৎপাদিত হয়েছে। সরিষা, তিল, বাদাম মিলে ১১ হাজার ১৪৪ হেক্টর জমিতে ১৪ হাজার ৪৪৯ মেট্রিক টন তেল উৎপাদিত হয়েছে। ৩৬৭ হেক্টর জমিতে ৪ হাজার ১৪৭ মেট্রিক টন পেঁয়াজ। মশুর, মাশকলাই, মটর, খেসারি, মুগসহ ২ হাজার ১৪৯ হেক্টর জমিতে ২ হাজার ৭২২ মেট্রিক টন ডাল উৎপদিত হয়েছে।
কুমিল্লা কৃষি বিভাগের উপ-পরিচালক মিজানুর রহমান আরো জানান, কুমিল্লার ১৭ উপজেলায় সবচেয়ে বেশি ফলন উৎপাদিত হয় বরুড়া উপজেলায়। জলাঞ্চল হওয়ায় এক মৌসুমে ফসল ফলিয়ে সবচেয়ে পেছনে আছে মনোহরগঞ্জ। কুমিল্লা জেলা শুধু এক ধরনের সবজির জন্য নয়, পুরো জেলায় নানান রকমের দানাদার শস্য, শাক-সবজি উৎপাদিত হয়। বাণিজ্যিক ভাবেও কুমিল্লা সবচেয়ে বেশি সবজি উৎপাদন করে। আখ, কচুর লতি, মিষ্টি আলু, তিল, ধনিয়া, সরিষা বাণিজ্যিক ভাবে উৎপাদিত হচ্ছে। এছাড়া মরিচ, পেঁয়াজ, রসুন, আদা, হলুদও উৎপাদিত হচ্ছে উল্লেখযোগ্য হারে।  আখ, মাল্টা, ড্রাগন ফলসহ বিভিন্ন ধরনের ফলও বাণিজ্যিক ভাবে চাষ হচ্ছে কুমিল্লায়।