ব্রেকিং:
মাস্কের টুইটে উত্তাল ভারতের রাজনীতি চার মাসে বিদেশে চাকরি কমেছে ২০ শতাংশ রাজধানীর বড় বড় হাসপাতাল যেন ‘বাতির নিচে অন্ধকার’ ঈদের দিন যেসব উন্নত খাবার পেলেন কারাবন্দিরা আসুন ত্যাগের মহিমায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি হাসিল নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল বাজারে লঙ্কাকাণ্ড টিনের বেড়ায় বিদ্যুতের তার চাঁদপুরে অর্ধশত গ্রামে ঈদ উদযাপন স্বস্তিতে ঘরমুখো মানুষ যেভাবে গড়ে ওঠে শতবর্ষী কুমিল্লা কেন্দ্রীয় ঈদগাহ বেশি ভাড়া রাখায় উপকূল পরিবহনকে জরিমানা মিয়ানমার সীমান্তের পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত থাকার নির্দেশ রাখাইনে বড় সংঘাতের আশঙ্কা, বাসিন্দাদের সরে যাওয়ার নির্দেশ একদিনে পদ্মাসেতুর আয় পৌনে ৫ কোটি টাকা চামড়া সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে র‌্যাবের কঠোর হুঁশিয়ারি ঈদে ট্রেনে মানুষের নির্বিঘ্নে বাড়ি যাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজনে সকল রাজনৈতিক দলকে আমন্ত্রণ খাদ্যসামগ্রী ও দেড় শতাধিক মানুষ নিয়ে জাহাজ গেল সেন্ট মার্টিন কুমিল্লায় বেতন-বোনাসের দাবিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ আফজাল খান পত্নী বীর মুক্তিযোদ্ধা নার্গিস আফজালের ইন্তেকাল
  • মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৪ ১৪৩১

  • || ১০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

কুমিল্লায় দুই ডায়াগনস্টিক সেন্টার সিলগালা

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

কুমিল্লা এপসম ম্যাডিকেল সার্ভিসেস, নগরীর বাদুরতলায় এই ডায়গনস্টিক সেন্টারটির শ্লোগান হিসেবে লেখা - আপনার সুস্বাস্থ্যের প্রথম ধাপ। অথচ প্রতিষ্ঠান পরিচালনার প্রথম ধাপ লাইসেন্সই নেই প্রতিষ্ঠানটির। কেয়ার ওয়ান ডায়াগনস্টিক ও কনসালটেশন সেন্টার নাম হলেও সেখানে গিয়ে পাওয়া যায়নি কোন ডাক্তার।
স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠান হলেও - দুটি প্রতিষ্ঠানেই গিয়ে পাওয়া যায়নি কোন চিকিৎসক। সি ক্যাটাগরির প্রতিষ্ঠান হয়েও বি ক্যাটাগরির বিভিন্ন স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে আসছিল প্রতিষ্ঠানগুলো। এসব প্রতিষ্ঠানগুলোর আবার নেই কোন লাইসেন্স। এমন নানান অনিয়ম নিয়ে কুমিল্লা নগরীর প্রাণকেন্দ্র ঝাউতলা তেই স্বাস্থ্য সেবা চালিয়ে যাচ্ছিল কুমিল্লা এপসম মেডিকেল সার্ভিসেস ও কেয়ার ওয়ান নামে দুইটি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান। ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ডায়াগনস্টিক সেন্টার দু'টিকেই সিলগালা ও আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে।


বৃহস্পতিবার দুপুরে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দেবাশীষ অধিকারীর নেতৃত্বে এই ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়। স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার আব্দুল কাইয়ুম ও মেহেদী হাসান।
মেডিকেল অফিসার আব্দুল কাইয়ুম জানান, দুই টি প্রতিষ্ঠানেরই স্বাস্থ্য সেবা পরিচালনার লাইসেন্স ছিল না। এছাড়া সি ক্যাটাগরির প্রতিষ্ঠান হয়ে বি ক্যাটাগরির বিভিন্ন স্বাস্থ্য পরীক্ষা চালিয়ে আসছিল এসব প্রতিষ্ঠান। ডেঙ্গু পরীক্ষায় অতিরিক্ত টাকা নেয়া ছাড়াও প্রতিষ্ঠান গুলোর মান অসন্তোষজনক হওয়ায় তাদেরকে সিলগালা করে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠানের শর্ত পূরণ না করে এসব প্রতিষ্ঠান খুলতে পারবে না।