ব্রেকিং:
পেঁয়াজের মাধ্যমে ছড়াচ্ছে ব্যাকটেরিয়া, আক্রান্ত ৪২ দেশ বন্যায় এ পর্যন্ত ১০ হাজার ৪৮ মেট্রিক টন চাল বিতরণ হাওরে ট্রলারডুবি, ১৭ জনের মরদেহ উদ্ধার মৎস্য খাতে কোনো দুর্নীতি বরদাশত করা হবে না : শ ম রেজাউল `পাট খাতে যুগোপযোগী সংস্কার করা হচ্ছে` জুলাইয়ে রপ্তানি আয় বেড়েছে ১৩.৩৯ শতাংশ সব কাজ ডিজিটালি করার পথ খুলছে দেশে একদিনে আরো ৩৩ মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ২৬৫৪ বৈধ পথে বাড়ছে রেমিট্যান্স হুন্ডির দিন শেষ ঈদ ঘিরে বঙ্গবন্ধু সেতুতে টোল আদায়ে রেকর্ড মেজর সিনহার মাকে ফোন, বিচারের আশ্বাস প্রধানমন্ত্রীর একাদশ শ্রেণির ভর্তি আবেদন রোববার থেকে শুরু করোনায় স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য আবাসনে ছয় প্রতিষ্ঠান লেবাননে বিস্ফোরণে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ১৯ সদস্য আহত ঝড়বৃষ্টি নিয়ে দুঃসংবাদ জানালো আবহাওয়া অফিস লেবাননের বৈরুতে যে কারণে ঘটল বিস্ফোরণ গোপালগঞ্জে স্কুলে ও রাস্তায় আশ্রয় নিয়েছে ৫ শতাধিক বানভাসি চীনা ভ্যাকসিনের ফলাফল সন্তোষজনক হলে বাংলাদেশে ট্রায়াল শনিবার থেকে চামড়া কিনবেন ট্যানারি মালিকরা আন্তর্জাতিক বাজারে ২ শতাংশ বেড়েছে জ্বালানি তেলের দাম
  • বুধবার   ০৫ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২২ ১৪২৭

  • || ১৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

৮০

গবেষণা প্রটোকল জমা না দিয়েই বিষোদগার করছেন জাফরুল্লাহ

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ২৯ এপ্রিল ২০২০  

যেকোনও বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার অনুমোদনের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে ওই উদ্ভাবনের গবেষণা প্রটোকল নির্দিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেয়। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে এটি জমা দিতে হয় বাংলাদেশ চিকিৎসা গবেষণা পরিষদে (বিএমআরসি)। অথচ উদ্ভাবিত করোনা টেস্টিং কিটের সেই প্রটোকলই জমা দেয়নি ডা. জাফরুল্লাহর গণস্বাস্থ্য।

গবেষণার একটি মৌলিক নিয়ম লঙ্ঘন করেই গত কয়েকদিন ধরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে এসেছেন জাফরুল্লাহ। এমনকি এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে অফিসিয়াল কোনো চিঠি বা অন্য কোনো মাধ্যমেও যোগাযোগ করা হয়নি বলে জানিয়েছেন বিএমআরসির পরিচালক ডা. মাহমুদ-উজ-জামান।

এদিকে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, খুব দ্রুতই আমরা প্রটোকল জমা দেবো।

বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, যেকোনো নতুন গবেষণা বা আবিষ্কারের ক্ষেত্রে মানুষের উপকারে কতটুকু আসবে তা নিশ্চিত করার জন্য সবসময় কিছু সাবধানতামূলক প্রক্রিয়া অবলম্বন করতে হয়। এক্ষেত্রে অন্যতম হলো উদ্ভাবক প্রতিষ্ঠানকে গবেষণা বিষয়ে একটি প্রটোকল (Protocol) প্রস্তুত করে বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিল (BMRC)-এর ন্যাশনাল রিসার্চ ইথিকস কমিটিতে পাঠাতে হবে। সেখানে অনুমোদনের পরেই প্রটোকলটি ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের ন্যাশনাল ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালস অ্যাডভাইসারি কমিটিতে যাবে। সেখান থেকে অনুমোদনের পরে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল করতে হবে, যা আইন অনুযায়ী হতে হবে একটি থার্ড পার্টি বা কন্ট্রাক্ট রিসার্চ অর্গানাইজেশনের (সিআরও) মাধ্যমে। এই ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের সব ধাপ সম্পন্ন হলেই কেবল চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দিতে হবে ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরে। সেই ট্রায়ালের সফলতা সাপেক্ষে চূড়ান্ত অনুমোদন আসে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন ড্রাগ কন্ট্রোল কমিটি থেকে। এইগুলো আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত প্রক্রিয়া। এইক্ষেত্রে প্রটোকল তৈরি করে তা জমা দেওয়াই হচ্ছে প্রথম কাজ।

বাংলাদেশ চিকিৎসা গবেষণা পরিষদের (বিএমআরসি) পরিচালক ডা. মাহমুদ-উজ-জামান বলেন, ‘আমাদের কাছে অফিসিয়ালি গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পক্ষ থেকে কোনো চিঠি বা কোনো অ্যাপ্রোচ করা হয়নি। যদি সেই অ্যাপ্রোচ করা হয় তবে আমরা খুব দ্রুততার সঙ্গে তা নিয়ে কাজ করব। আমাদের ওয়েবসাইটেই এই বিষয়ে বিস্তারিত আছে। আমরা অনলাইনেও এই ধরনের গবেষণার পেপার নিচ্ছি এখন।’

তিনি আরও বলেন, ‘যেভাবে এ বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে কথা বলা হচ্ছে তাতে জনগণের কাছে একটা ভুল তথ্য যাচ্ছে। আমরা চাই সত্য ও সঠিক বিষয় সবার সামনে যাক। বিজ্ঞান একটি জটিল প্রক্রিয়া। যেহেতু এটা সরাসরি মানুষের জীবনের সঙ্গে জড়িত তাই টেস্ট কিট গবেষণা বিষয়েও একটি প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হয়।’

এটা শুধু বাংলাদেশের জন্য নয়, বিশ্বব্যাপী প্রচলিত একটি নিয়ম আছে জানিয়ে এই কর্মকর্তা বলেন, ‘গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র যেটা উদ্ভাবন করেছেন সেটি হলো একটি ডায়াগনস্টিক কিট। এটিকে বলতে পারেন একটি টেস্টিং কিট বা ডিভাইস। আবার ধরুন কোনো নতুন ওষুধ বা ড্রাগ। এগুলো তৈরি করার জন্য যখন গবেষণা করবেন কোনো ল্যাবে তখন এটা প্রক্রিয়াজাতকরণের জন্য ভ্যালিডেশন করতে হয়। এক্ষেত্রে সেটিকে সাকসেসফুল ঘোষণা দেওয়ার আগে পরীক্ষা করতে হয়। সেটার জন্য প্রথম যে বিষয় প্রয়োজন তা হলো একটা প্রটোকল তৈরি করে তার ইথিক্যাল অ্যাপ্রুভাল নেওয়া।’

ডা. মাহমুদ-উজ-জামান বলেন, ‘কিছু নিয়ম তো মানতে হবে। উনারা এই ধরনের কোনো কিছুই মানেননি বা সেজন্য কোনো আবেদনও করেননি। জনগণের সামনে এই ধরণের গবেষণা নিয়ে যেকোনো বিষয়ে বলার আগে কীভাবে সেটি প্রকাশ করব তার কিছু প্রক্রিয়া থাকে। জনগণকে তো দেখাতে হবে যে, আমার এই গবেষণা এত শতাংশ সফল হয়েছে, মানে এটা কাজ করছে। এই বিষয়টি যিনি গবেষণা বা আবিষ্কার করবেন তাকেই করতে হবে। আর এক্ষেত্রে কিছু প্রক্রিয়া আছে তার মধ্য দিয়েই করতে হয়। সেই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার জন্য একটা ইথিক্যাল অনুমোদন নিতে হয়।’

তিনি জানান, অনুমোদন দেওয়ার জন্য বাংলাদেশে জাতীয় পর্যায়ের একটি কমিটি আছে, যাকে ন্যাশনাল রিসার্চ ইথিকস কমিটি বলে। সেটা বিএমআরসির অধীনে একটি স্বাধীন কমিটি। সেই কমিটির অনুমোদন নিতে হয়। এটা সব কিছুর ক্ষেত্রেই। সেটা হোক ড্রাগ বা কোনো ডিভাইস। এটা বিশ্বব্যাপী সব দেশেরই স্বীকৃত প্রক্রিয়া।

তিনি আরও বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে ড. বিজন কুমার শীলকে চিনি। তিনি সিঙ্গাপুরে ছিলেন এক সময়। উনার সঙ্গে যারা আছেন তাদেরকেও আমি চিনি। উনারা সবাই এই প্রক্রিয়াগুলো সম্পর্কে জানেন। যারা বিদেশে কাজ করে এসেছেন তারা আরও ভালো করে জানেন যে, এই সিস্টেমের মধ্য দিয়েই যেতে হয়।’

কুমিল্লার ধ্বনি
ইত্যাদি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর