ব্রেকিং:
বাংলাদেশে গুগল ম্যাপে যুক্ত হলো নতুন ফিচার বন্যা মোকাবিলায় সেনাবাহিনী প্রস্তুত: সেনাপ্রধান গাপটিলের সেই থ্রো নিয়ে কথা বলল আইসিসি বাংলাদেশি পণ্যের রফতানি বাড়বে কলকাতায়: এফবিসিসিআই বিজেপি ক্ষমতায় আসার পরই ভারতে মুসলিম নিপীড়ন বেড়েছে বাংলাদেশি বিজ্ঞানীদের গুতুম মাছের কৃত্রিম প্রজনন কৌশল উদ্ভাবন এইচএসসি পরীক্ষায় পাসের হার ৭৩ দশমিক ৯৩ শতাংশ সেনাবাহিনী-বিজিবির চেষ্টায় বান্দরবানের সঙ্গে যোগাযোগ স্বাভাবিক ‘সব আদালতে নিরাপত্তা বাড়ানো হবে’ কোরবানির ঈদ পর্যন্ত বিদেশি গরু প্রবেশ নিষিদ্ধ এরশাদের আসন শূন্য ঘোষণা, তিন মাসের মধ্যে নির্বাচন কথাবার্তায় সন্দেহ থেকে গ্রেফতার হলো মিন্নি ৩৬ কোটি টাকার ওষুধ ধ্বংস, জরিমানা দেড় কোটি একনেকে ৫ হাজার কোটি টাকার ৮ প্রকল্প অনুমোদন ব্যাংক কর্মকর্তাকে ধর্ষণের পর হত্যা, পাঁচজনের মৃত্যুদণ্ড বেশির ভাগ দুধেই সিসা: হাইকোর্টে বিএসটিআইয়ের রিপোর্ট বিশ্বকাপ শেষেও বিশ্বসেরা ওয়ানডে অলরাউন্ডারের মসনদে সাকিব বসানো হবে বজ্রপাত নিরোধক টাওয়ার বউয়ের তালাক নোটিশ পেয়ে খুশিতে দুধ দিয়ে গোসল করলেন স্বামী শান্তিরক্ষা মিশনে বঙ্গবন্ধুর নামে সম্মেলন কক্ষ

বুধবার   ১৭ জুলাই ২০১৯   শ্রাবণ ২ ১৪২৬   ১৪ জ্বিলকদ ১৪৪০

কুমিল্লার ধ্বনি
৭১৩১

গুলি চালিয়ে আওয়ামী লীগের ২৫ কর্মীকে আহত করে সানটু (ভিডিও)

প্রকাশিত: ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮  

বরিশালের বানারীপাড়া পৌর শহরের বাসস্ট্যান্ড এলাকায় সোমবার (২৪ ডিসেম্বর) বিকাল চারটার দিকে বিএনপির প্রার্থী সরদার সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টু ও তার সমর্থকরা আওয়ামী লীগ প্রার্থী শাহে আলমের সমর্থকদের ওপর অতর্কিত অন্ত্যত ৫০ রাউন্ড গুলি ছোঁড়ে ঘটনাস্থল থেকে সরে যায়। এলাকাবাসী সঙ্গে কথা বলে এবং বিএনপি প্রার্থী সান্টুর একটি ফোনালাপ ফাঁসের মাধ্যমে বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত হওয়া যায়।

উক্ত ফোনালাপে তিনি বলেন, সাবাইকে বের হতে বলো। আজ কেউ আসলে তাদের মারবো। আমি এলাকা দিয়ে যাবো, এখন আর্মি নেমেছে। আমি তাদের গুলি করে দেবো। জনৈক ব্যক্তির সঙ্গে ফোনালাপ শেষ হবার দুই ঘন্টা পর বরিশালের বানারীড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনার সময়ে বিএনপি প্রার্থী এস সরফুদ্দিন আহমদ সান্টু তার নিজের রিভলবার দিয়ে অন্ত্যত ৩০ রাউন্ড গুলিবর্ষণ করেন। আর তার সহযোগীরা অন্ত্যত ২০ রাউন্ড গুলি ছোঁড়ে।

আহদের মধ্যে গুরুতর ২২ জনকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় পৌর শহরে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। সান্টু সমর্থকরা সে সময়ে এলাকায় অবস্থতি আওয়ামী লীগ অফিসে ভাংচুর চালায় সঙ্গে এলাকার বিভিন্ন দোকানপাটও ভেঙে ফেলে। ঘটনার পর পৌর শহরে বিজিবি ও পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে।

অপরদিকে এ ঘটনার পর বিএনপি প্রার্থী এস সরফুদ্দিন আহমদ সান্টুসহ হামলাকারীদের শাস্তির দাবি করে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা পৌর শহরে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে।

স্থানীয় বাসিন্দা তুরান বেপারীসহ একাধিক ব্যক্তি জানান, বিএনপি প্রার্থী এস সরফুদ্দিন আহমদ সান্টু ২টি মাইক্রোসহ ৬টি গাড়ি ও ৮-১০টি মাহেন্দ্র-আলফা এবং ২০-২৫টি মোটরসাইকেল নিয়ে বিকাল ৪টার দিকে বানারীপাড়ায় প্রবেশ করেন। এ সময় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের বেশ কয়েকজন কর্মী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী শাহে আলমরে নৌকা প্রতীকের লিফলেট বিতরণ করছিলেন।

হঠাৎ করে গুলির শব্দ শুনে এলাকার লোকজন ছুটোছুটি শুরু করে। এরই মধ্যে সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টুর সঙ্গে থাকা কর্মীরা ছাত্রলীগ ও যুবলীগ কর্মীদের এলোপাতাড়ি পেটাতে থাকে। একপর্যায়ে বিএনপি প্রার্থী সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টু ও তার সঙ্গে থাকা দুজনে গাড়ি থেকে বের হয়ে কয়েক রাউন্ড গুলি করতে থাকে।

এ সময় তার কর্মীরা তুরানের বাড়ির সামনে থাকা একটি নৌকা ভাঙচুর ও ছাত্রলীগ-যুবলীগের ১১ জনকে পিটিয়ে আহত করে। পরে অবস্থা বেগতিক দেখে সন্টু ও তার লোকজন দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন। এ সময় আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয়রা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

এদিকে হাসপাতালে ভর্তি থাকা গুরুতর আহত শাহিন সরদার জানান, ঘটনার সময় তিনি যুবলীগ নেতা দুলাল তালুকদারের মোটরসাইকেলে করে পৌর শহরে আসেন। তারা বাসস্ট্যান্ড পৌঁছার সঙ্গে সঙ্গে তাদের মোটরসাইকেলের সামনে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী শাহে আলমের নৌকা প্রতীকের লিফলেট লাগানো দেখে সান্টু সমর্থকরা তাদেরকে লাঠি দিয়ে পেটাতে শুরু করে।

এতে দুলাল ও শাহিন গুরুতর আহত হয়। খবর পেয়ে টেম্পুস্ট্যান্ড থেকে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের বেশকিছু নেতাকর্মী ঘটনাস্থলে ছুটে আসলে বিএনপি প্রার্থী এস সরফুদ্দিন আহমদ সান্টু তার গাড়ি থেকে নেমে নিজের অস্ত্র দিয়ে বেশ কয়েক রাউন্ড গুলিবর্ষণ করেন। ওই সময় তার সঙ্গে থাকা কর্মীরা ছাত্রলীগ ও যুবলীগ কর্মীদের পেটাতে থাকে।

এতে ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতা শফিকুল ইসলাম দুলাল, শাহি সরদার, রাহাদ মাল, রাজু খান, মশিউর রহমান সুমন, ইব্রাহিম মৃধা, সুজন খান, আনোয়ার হোসেন, সুমন মোল্লা, মিন্টু, আল আমিন সিকদার গুরুতর আহত হয়। আহতদের মধ্যে শফিকুল ইসলাম দুলাল, রাজু খান ও ইব্রাহিম মৃধাকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এছাড়াও বিএনপি ক্যাডাররা যাওয়ার সময় নারায়ণপুর আওয়ামী লীগ অফিস ভাঙচুর ও দলীয় নেতাকর্মীদের মারধর করে।

কুমিল্লার ধ্বনি
কুমিল্লার ধ্বনি
এই বিভাগের আরো খবর