ব্রেকিং:
বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে উত্তর জেলা আ’লীগের পুষ্পস্তবক অর্পণ ৪৮ বছরেও নির্মিত হয়নি গণহত্যার স্মৃতিস্তম্ভ আন্তর্জাতিক ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে কুমিল্লার সন্তান গোমতীর বাঁধে অবৈধ ভাবে গাছ কাটার অভিযোগ বিশাল জয়ে শুরু কুমিল্লার বিপিএল মিশন জামাত থেকে সাবেক সচিব এর পদত্যাগ কুবি শিক্ষক সমিতি নির্বাচনে নীল দলের জয় ডাকাতিয়ায় বালু ডাকাতি রেলওয়ের জায়গায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ‘জনগণের সেবার জন্যই পুলিশের জন্ম’ রাতের আধারে গোমতী যেন লুটের চর! এই দিনে হানাদার মুক্ত হয় চান্দিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস আজ সান্ধ্য কোর্স বন্ধসহ ১৩ নির্দেশনা দিল ইউজিসি গুগল সার্চিংয়ে শীর্ষে সাকিব! অর্থ পাচার রোধে বিএফআইইউ’র নতুন নীতিমালা পাঁচ উপায়ে অর্থ সঞ্চয় করুন চিন্তা ছাড়াই! ‘জ্যোতিষশাস্ত্র ও রাশিফল’ ইসলাম যা বলে স্বর্ণজয়ী আরচ্যারী দলকে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর অভ্যর্থনা ঢাকায় মুক্তি পাচ্ছে ‘জুমানজি: দ্য নেক্সট লেভেল’

বৃহস্পতিবার   ১২ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৮ ১৪২৬   ১৪ রবিউস সানি ১৪৪১

কুমিল্লার ধ্বনি
৯৬২

গোমতী চরে শীতকালীন সবজির বাম্পার ফলন

প্রকাশিত: ১৫ নভেম্বর ২০১৯  

কুমিল্লার গোমতীর চরে শীতকালীন সবজি উৎপাদনে ব্যাস্ত কৃষকরা। নদীর চরের উর্বর পলি মাটি আর সেচের সুবিধা থাকায় সারা বছরই সবজির ভালো ফলন হয় এখানে।

দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা বেপারীরা চরে উৎপাদিত ফসল সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে কিনে নিয়ে নিমসার, ফেনী, চট্টগ্রাম ও ঢাকার তেজগাঁও সহ বড় বড় পাইকারী বাজারে নিয়ে বিক্রি করেন।

দালাল বা ফরিয়া ব্যাবসায়ীদের দৌরাত্ম্য না থাকায় পরিশ্রমের সঠিক মূল্য পাচ্ছেন তারা। আবার কৃষকদের অনেকে নিজেরাই নিজেদের ক্ষেতের সবজি বাজারে নিয়ে বিক্রি করেন।

শীতকালীন আগাম শাক সবজির চাহিদা যেমন বেশী তেমনি দামও পাওয়া যায় ভালো, বললেন বুড়িচংয়ের কামারখারা এলাকার কৃষক জহির মিয়া। প্রায় ৩০ শতক জমিতে মুলা চাষ করেছেন এবার প্রতি কেজি মুলা ৩০ টাকা দরে বিক্রি করেছেন তিনি। তবে গত কয়েকদিন ঘুর্ণিঝড় বুলবুলের কারনে টানা বৃষ্টিপাতে সবজি ক্ষেতের কিছুটা ক্ষতি হয়েছে বলেও জানান তিনি।

কৃষি কাজের আদর্শ ভূমি এই গোমতী চরে শীতকালীন শাক সবজির ভেতরে রয়েছে পাতাকপি, ফুলকপি, লাউ, সীম, লালশাক, ঢেড়স, গোলআলু, মিষ্টি আলু, কুমড়া, ডাটা, মূলা, ধনিয়া, কাঁচামরিচ ও পালংশাক সহ নানা জাতের সবজি ও ফসল।

একদিকে বিস্তীর্ণ সবুজ শাক সবজি দেখে যেমন হৃদয় জুড়িয়ে যায় তেমনি আবার, শীতকাল এলেই ইটভাটা মালিক ও মাটি কাটা দস্যুদের কোদাল আর ভেকু মেশিন এর দৌরাত্ম্যের কারনে হৃদয়ে রক্তক্ষরণও হয়।

শীতের এ শুষ্ক মৌসুমে নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধ সড়ক ও ফসিল জমির ব্যাপক ক্ষতি করে চলে চরের মাটি কাটার মহোৎসব। কৃষি জমির মাটি কাটায় দেশের প্রচলিত আইনের বাধ্য বাধকতা ও কঠোরতা থাকলেও আইনের যথাযথ প্রয়োগ না থাকায় বন্ধ হচ্ছে না মাটি কাটা। বিক্সস ফিল্ডের মালিক, লোভী মাটি ক্রেতা ও বিক্রাতা সিন্ডিকেটের সদস্যরা স্থানীয় ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় না চাইলেও অনেক সময় নানা কারনে বাধ্য হয় কৃষকরা জমির মাটি বিক্রি করতে। আর এই মাটি কাটার ফলে হেক্টরে পর হেক্টর জমি থেকে যায় অনাবাদী। অনেক সময় দেখা যায় ফসলি জমির ওপর দিয়েই চলে ট্রাক্টর, ড্রাম ট্রাকের চাকা। কৃষি জমি, বাঁধ সড়ক ও পরিবেশের ওপর বিস্তর প্রভাব পরলেও আইন প্রয়োগকারী সংশ্লিষ্ট প্রশাসন জনবল সংকট সহ নানা অজুহাতে অপরাধীদের বিরুদ্ধে নিচ্ছেন না তেমন কোন পদক্ষেপ।

ফলে দিনদিন বেপরোয়া হয়ে উঠছে গোমতী চরের মাটি খেকো সিন্ডিকেট। জলবায়ু ও পরিবেশ বিপর্যয় ঠেকানো সহ কৃষি জমি, বাঁধ ও সড়ক রক্ষায় সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও কৃষি বান্ধব বর্তমান সরকারের কর্মকর্তারা কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহনের পাশাপাশি চরের কৃষকদের পৃষ্ঠপোষকতায় এগিয়ে আসবে এমনটাই আশা করে এখানকার কৃষকরা।

কুমিল্লার ধ্বনি
কুমিল্লার ধ্বনি
এই বিভাগের আরো খবর