ব্রেকিং:
মাস্কের টুইটে উত্তাল ভারতের রাজনীতি চার মাসে বিদেশে চাকরি কমেছে ২০ শতাংশ রাজধানীর বড় বড় হাসপাতাল যেন ‘বাতির নিচে অন্ধকার’ ঈদের দিন যেসব উন্নত খাবার পেলেন কারাবন্দিরা আসুন ত্যাগের মহিমায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি হাসিল নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল বাজারে লঙ্কাকাণ্ড টিনের বেড়ায় বিদ্যুতের তার চাঁদপুরে অর্ধশত গ্রামে ঈদ উদযাপন স্বস্তিতে ঘরমুখো মানুষ যেভাবে গড়ে ওঠে শতবর্ষী কুমিল্লা কেন্দ্রীয় ঈদগাহ বেশি ভাড়া রাখায় উপকূল পরিবহনকে জরিমানা মিয়ানমার সীমান্তের পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত থাকার নির্দেশ রাখাইনে বড় সংঘাতের আশঙ্কা, বাসিন্দাদের সরে যাওয়ার নির্দেশ একদিনে পদ্মাসেতুর আয় পৌনে ৫ কোটি টাকা চামড়া সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে র‌্যাবের কঠোর হুঁশিয়ারি ঈদে ট্রেনে মানুষের নির্বিঘ্নে বাড়ি যাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজনে সকল রাজনৈতিক দলকে আমন্ত্রণ খাদ্যসামগ্রী ও দেড় শতাধিক মানুষ নিয়ে জাহাজ গেল সেন্ট মার্টিন কুমিল্লায় বেতন-বোনাসের দাবিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ আফজাল খান পত্নী বীর মুক্তিযোদ্ধা নার্গিস আফজালের ইন্তেকাল
  • মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৪ ১৪৩১

  • || ১০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

চান্দিনায় শিশু হত্যা মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ২২ মে ২০২৪  

কুমিল্লার চান্দিনায় ৬ বছরের শিশু সুবর্ণা আক্তার মীম নামের এক শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টার পর শ্বাসরোধ করে হত্যা মামলায় সাড়ে ৬ বছর পর রায় দিয়েছে কুমিল্লার একটি আদালত। এতে মামলার একমাত্র আসামি ওমর ফারুক (২৫) নামের এক যুবককে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদ- দিয়েছেন আদালত।
মঙ্গলবার (২১ মে) কুমিল্লার বিজ্ঞ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল-২ এর বিচারক (জেলা জজ) মোঃ জাহিদুল কবির এ রায় দেন। হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড ও ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ডের পাশাপাশি  আরও ২টি ধারায় ১৫ বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও ৩৫ হাজার টাকা অর্থদন্ড দেন আদালত। রায় ঘোষণাকালে আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন আসামী ওমর ফারুক।
দ-প্রাপ্ত আসামি মোঃ ওমর ফারুক (২৫) হলেন কুমিল্লা চান্দিনা উপজেলার বেলাশ্বর গ্রামের মোস্তফা কামাল এর ছেলে। পেশায় একজন গাড়ি চালক। ২০১৭ সালের ৬ ডিসেম্বর ভিকটিম চান্দিনা পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ড বেলাশহর গ্রামের কোরবান আলীর শিশু কন্যা সুবর্ণা আক্তার মীমকে ধর্ষণের পর হত্যাকালে গাড়ি চালক আসামী ওমর ফারুক এর বয়স ছিল ১৯ বছর।
মামলার বিবরণে, আইনজীবী ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়- চান্দিনা পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের সাদত আলী মেম্বার এর ছেলে মো. কোরবান আলী ও খাদিজা আক্তার শিমু দম্পতির কন্যা সুবর্ণা মীম। মা-বাবার দাম্পত্য কলহে তাদের মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ হলে শিশুটি তার বাবার সাথেই থেকে যায়। ২০১৭ সালের ৬ ডিসেম্বর কোরবান আলী মোবাইল করে শিশুর মাকে জানায় তার মেয়ে সুবর্ণা মীম কে খোঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা। এরপর সন্ধ্যায় কোরবান আলী জানান কে বা কাহারা সুবর্ণা মীম এর মুক্তিপণ হিসেবে দশ লক্ষ টাকা দাবি করে। পরদিন সকালে চান্দিনা আর এন আর সিরামিক ফ্যাক্টরির সংলগ্ন থানগাঁও খালের পশ্চিম পাশের্^ সুবর্ণা মীম এর লাশ গলায় ওড়না পেচানো অবস্থায় পাওয়া যায়।
ওই ঘটনায় ৭ ডিসেম্বর শিশুর মা খাদিজা আক্তার শিমু বাদী হয়ে চান্দিনা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সাব-ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) ডালিম কুমার মজুমদার তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে ৮ ডিসেম্বর কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার বেলাশ্বর গ্রামের মোস্তফা কামাল এর ছেলে মো. ওমর ফারুক কে গ্রেফতার করে। আসামীকে আদালতে সোপর্দ করলে সে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি প্রদান করে। জবানবন্দি পর্যালোচনাক্রমে আসামি মো. ওমর ফারুক এর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় তাঁকে দন্ডবিধির ৩০২ ধারায় যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড ও ৫০ হাজার টাকা অর্থদ- এবং ২০১ ধারায় ৫ বছরের সশ্রম কারাদ- ও ১০ হাজার টাকা অর্থদ- প্রদান করে আদালত। এছাড়াও নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন-২০০০ (সং/০৩) এর ৯(৪)(খ) ধারায় ১০ বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও ২৫ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রদান করে আদালত। রায়ের আরও উল্লেখ করা হয়, বর্ণিত সাজা একসাথে চলবে।
একমাত্র শিশু মেয়েকে এভাবে নির্মম ভাবে হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাকে মেনে নিতে পারছেন না নিহত শিশু সুবর্ণা আক্তার মীম এর পিতা কোরবান আলী। তিনি জানান, এমন নির্মম হত্যা মামলায় আমরা তার ফাঁসির রায় প্রত্যাশা করেছিলাম।
রাষ্ট্রপক্ষে কুশলী স্পেশাল পিপি এডভোকেট মো. মিজানুর রহমান মজুমদার বলেন, আশা করছি উচ্চ আদালত এ রায় বহাল রাখবেন।
এদিকে, আসামি পক্ষের এডভোকেট মো. হাছান বলেন- রায়ের কপি হাতে পেলে শীঘ্রই উচ্চ আদালতে আপিল করবো।