ব্রেকিং:
প্রসঙ্গ : বিশ্ব আদিবাসী দিবস আদিবাসী ইস্যু : দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের নীল নকশা চাকমা: আদিবাসী নয় বহিরাগত আদিবাসী নিয়ে ফের বিভ্রান্তি সৃষ্টির চেষ্টা পার্বত্য চট্টগ্রামের নৃ-গোষ্ঠীগুলো আদিবাসী না অভিবাসী? দেশে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় প্রাণ গেলো ৩২ জনের, আক্রান্ত ২৬১১ হাঁস চুরির ঘটনায় দু’দলের মারামারি ভাংচুর ও লুটপাট, আহত ১০ একাদশে ভর্তির আবেদন শুরু কাল, যেভাবে করবেন টেকসই বাঁধ নির্মাণে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে পোশাকশিল্পে অবিশ্বাস্য রকমের প্রবৃদ্ধি হবেই দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ বৈদেশিক সাহায্যের নতুন রেকর্ড বাংলাদেশের সঙ্গে আরো জোরালো সম্পর্ক গড়ার উদ্যোগ ভারতের দুর্গম ৩১ দ্বীপে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের উচ্চগতির ইন্টারনেট বঙ্গবন্ধুর খুনিকে ফেরাতে ট্রাম্পকে চিঠি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছিলেন বঙ্গবন্ধুর বিশ্বস্ত সহচর বঙ্গবন্ধু ছিলেন কৃষকের আপনজন পাউবোর কাজে ধীর গতি, শত কোটি টাকার ক্ষতির আশঙ্কা অবশেষে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ত্রাণের সব তালিকা বাতিল বাজারে হামলা, দুই চেয়ারম্যানের পাল্টা পাল্টি অভিযোগ বঙ্গমাতার ৯০তম জন্মবার্ষিকী আজ
  • শনিবার   ০৮ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২৪ ১৪২৭

  • || ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

১৬৫৩

চিকিৎসকের দায়িত্বহীনতায় চরম ভোগান্তিতে রোগীরা

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ৭ ডিসেম্বর ২০১৯  

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরী বিভাগে রোগী ভর্তি করা হয় সাড়ে চারটায়। সেই রোগীকে ক্যাজুয়ালটি বিভাগে অপারেশন থিয়েটারে অপারেশন বেডে ১ঘন্টা শুয়ে থাকার পর চিকিৎসা মিল্ল রোগীদের।   জরুরী বিভাগ থেকে ক্যাজুয়ালটি ওয়ার্ডে পাঠানোয় হয় হাত কাটা রাব্বি(১৬) , আছিয়া আক্তার (৩০) মারিয়া (৪) । এদের মধ্যে কেই মারামারি করে এসেছে আবার কেউ সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে চিকিৎসা নিতে এসেছে। অপারেশন থিয়েটারে প্রবেশের পর অপারেশন বেডে প্রায় ১ঘন্টা পেরিয়ে গেলেও কর্তব্যরত কোন ডাক্তারকে পাওয়া যায়নি। হাসপাতালের পরিচালককে ফোন করার পর তিনি জানালেন আমি এখন কি করব। পরিচালক মুঠোফোনে ব্রাদার ওয়াজিরকে বল্লেন ডাক্তারকে খোজে বের করার জন্য। ব্রাদার ওয়াজির ও নার্স পারুল দুইজন ডাক্তারের তালাবদ্ধ কক্ষ খুলে সেখান থেকে নাম্বার সংগ্রহ করে ফোন দিলেন ডাক্তারকে। ডাক্তার বল্লেন তিনি বিষয়টি দেখছেন। এই হলো কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ক্যাজুয়ালটি বিভাগের চিকিৎসা সেবার চিত্র। উর্দ্ধতনরা জনবল সংকটের দোহাই দিয়ে চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত করছে রোগীদের।  
গতকাল ০৬ নভেম্বর শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৪টায় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ক্যাজুয়ালটি বিভাগে গিয়ে এসব চিত্র চোখে পড়ে। পরে পৌনে ছয়টায় হাসপাতালে আসে ইন্টার্ণ ডাক্তার। ছয়টায় চিকিৎসা দেওয়া হয় রোগীদের।
১ঘন্টা পর দুই ইন্টার্ণ ডাক্তার আসলেন তারা রোগীদের দেখলেন একজনকে সেলাই করার নির্দেশ দিলেন অন্যজনকে বল্লেন বেন্ডিজ কের ফেলে রাখতে । ক্যাজুয়ালটি বিভাগের সহকারী রেজিস্ট্রার ডা: আরিফুর রহমান  আসলে তাকে চিকিৎসা দেওয়া হবে। হাতের রগকাটা বিষয়টি ক্রিটিক্যাল । সিনিয়র ডাক্তার ছাড়া তাকে চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব নয়। তখন মারিয়া আক্তার ৪ বছরের শিশুটিকে চিকিৎসা দেওয়া হল।
হাসপাতালে বিভিন্ন ওয়ার্ডে ডাক্তারগন যথাসময়ে উপস্থিত থাকেন না দীর্ঘদিনের অভিযোগ। তাছাড়া পুরো হাসপাতাল ইণ্টার্ণ ডাক্তার নির্ভর। যার কারণে হাসপাতালে নানা সময়ে ঘটে নানান অপ্রীতিকর ঘটনা। এজন্য হাসপাতালে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ। কিন্তু পুলিশ কি পারবে সাধারণ মানুষের দীর্ঘদিনের এ সমস্যা সমাধান করতে প্রশ্ন ভোগÍভোগীদের।
হাসপাতালের সহকারী রেজিস্ট্রার আরিফুর রহমানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমি বিষয়টি দেখছি। হাসপাতালে একঘন্টা ডাক্তার নেই বিষয়টি আমাকে কেউ জানায়নি। আপনার মাধ্যমে জানতে পেরেছি।
হাসপাতালের পরিচালক ডা: আমিন আহাম্মদ খান জানান, একটু ধৈয্য ধরেন। একটু সময় দেন। মানুষ তোন যন্ত্র নয়। মানুষের সমস্যা থাকতেই পারে। আমাদের ডাক্তার নেই ডাক্তার সংকট রয়েছে।

কুমিল্লার ধ্বনি
কুমিল্লা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর