ব্রেকিং:
তিতাসে সিয়াম হত্যারয় দুই জনের স্বীকারোক্তি পুরো দেশকে উচ্চগতির ইন্টারনেটের আওতায় আনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে এইচএসসি পাসে ডিএসসিসিতে চাকরি, আবেদন করুন দ্রুত দ্রুত তওবাকারীদের সম্পর্কে কোরআনে যা বলা হয়েছে বিমানবন্দরে সাফজয়ী নারী ফুটবলারদের লাগেজ ভেঙে ডলার-টাকা চুরি সৌদি আরবে আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতায় হাফেজ তাকরিম তৃতীয় কুমিল্লায় ইয়াবা বিক্রির সময় ভারতীয় নাগরিকসহ ২ জন আটক রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে জাতিসংঘের জোরালো ভূমিকা চান প্রধানমন্ত্রী সাবিনাদের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে ছাদখোলা বাস প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাঙচুর: সোহাগ আলীর ১০ বছরের কারাদণ্ড শেখ হাসিনাকে পাকিস্তান সফরের আমন্ত্রণ শেহবাজ শরিফের সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণ ৪ শর্তে শিথিল জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগ দিতে নিউইয়র্ক পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী কুমিল্লায় চার হাসপাতাল সিলগালা, ৩ লাখ টাকা জরিমানা মিয়ানমারের ব্যাপারে সর্বোচ্চ সংযম দেখাচ্ছে বাংলাদেশ:প্রধানমন্ত্রী সিপিডিতে ভালো পদে চাকরির সুযোগ, শুরুতেই পাবেন ৩৫০০০ ঘুমধুম সীমান্তের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের দুটি বাস দিল পুলিশ লক্ষ্মীপুরে ১৫ জুয়াড়ি আটক লন্ডন পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী যেখানে সন্ধ্যার পরই জেলার সঙ্গে উপজেলার যোগাযোগ বন্ধ
  • রোববার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১০ ১৪২৯

  • || ২৭ সফর ১৪৪৪

ছেলেকে নিয়ে উধাও প্রেমিকের সঙ্গে, লাশ নিয়ে ফিরলেন স্বামীর কাছে

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২  

ছোট বোনের স্বামী জুলহাসের প্রেমে পড়েন শীলা। ওই প্রেমে আসক্ত হয়ে দেড় বছর আগে ছেলে তাওসিফকে সঙ্গে নিয়ে প্রেমিকের হাত ধরে পালিয়ে যান শীলা। এরপর জুলহাসের সঙ্গে পার্শ্ববর্তী শিমুলিয়া এলাকায় ভাড়া বাড়িতে বসবাস করছিলেন তিনি। কিন্তু হঠাৎ ২০ সেপ্টেম্বর রাত ৯টার দিকে তাওসিফের লাশ নিয়ে সাবেক স্বামী জামাল উদ্দিনের কাছে হাজির হন শীলা। ঘটনাটি ঘটেছে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত মা শীলা আক্তারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার সন্ধ্যায় ওই শিশুটির বাবা জামাল উদ্দিন স্ত্রী শীলা বেগম ও তার প্রেমিক জুলহাসকে আসামি করে হত্যা মামলা করেছেন। তবে এরপর থেকেই জুলহাস পলাতক রয়েছেন। তাওসিফ উপজেলার ভোলাবো ইউপির পাইস্কা এলাকার জামাল উদ্দিনের ছেলে। সে স্থানীয় জনতা উচ্চবিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র ছিল।

ওই শিশুটির বাবা জামাল উদ্দিন বলেন, প্রায় দেড় বছর আগে স্ত্রী শীলা তার ছোট বোনের স্বামী জুলহাসের প্রেমে আসক্ত হয়ে ছেলে তাওসিফকে সঙ্গে নিয়ে পালিয়ে যান। পরে জুলহাসের সঙ্গে পার্শ্ববর্তী শিমুলিয়া এলাকায় ভাড়া বাড়িতে বসবাস করছিল। ২০ সেপ্টেম্বর রাত ৯টার দিকে তাওসিফের লাশ নিয়ে শীলা হাজির হন।

তিনি আরো জানান, প্রথমে সে জানান তাওসিফ জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। এ সময় আমার ছেলের শরীরে আঘাতের চিহ্ন দেখিয়ে তাকে চাপ দিলে সে বলে, ছেলে ফাঁস দিয়েছে। আমার ধারণা, শীলা ও তার প্রেমিক জুলহাস আমার ছেলেকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে।

নারায়ণগঞ্জের সহকারী পুলিশ সুপার (গ-সার্কেল) আবির হোসেন বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল (ভিক্টোরিয়া) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় হত্যা মামলা করেছেন নিহত শিশুর বাবা। এরই মধ্যে ওই শিশুর মা শীলাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।