ব্রেকিং:
২০ নভেম্বরের মধ্যে ছাপা হবে প্রাথমিকের সব বই ১১ দফা দাবি নিয়ে যা বললেন মাশরাফী জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস আজ দুর্ঘটনা রোধে নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবন শিক্ষার্থীদের রিফাতকে হারিয়ে স্বজনদের আর্তনাদ কুমিল্লায় ফের অস্থির পেঁয়াজের দর জেএসসি’র প্রবেশপত্রে ভুল সংশোধন ২৯ অক্টোবর পর্যন্ত এবার আঙুলের রিং হবে স্মার্ট! যে মাছ দেখামাত্র মেরে ফেলার পরামর্শ! শ্বশুরকে বিষ দিয়ে হত্যা করল বড় বউ! রাজীবের সঙ্গে ভাইরাল ভিডিও নিয়ে যা বললেন মেহজাবিন একটি মিষ্টি কুমড়ার ওজন ৯৮৬ কেজি! বিসিবিতে ক্ষুব্ধ ক্রিকেটাররা! সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদের দাবি মেনে নিল প্রশাসন আশ্রয়ণ প্রকল্পের নতুন ঘর পেলো তিনশ’ গৃহহীন পরিবার হা’মলা থেকে রক্ষায় মন্দিরের নিরাপত্তায় মাদ্রাসাছাত্ররা স্বাবলম্বী হতে গিয়ে ৬৯ বছরে বিয়ে, বাবা হলেন ৭১-এ পাঠাগার আছে,পাঠক কই? শিক্ষার্থীদের নির্যাতনের সময় বাজানো হয় গান কুবির প্রথম সমাবর্তন ২৭শে জানুয়ারি

মঙ্গলবার   ২২ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৬ ১৪২৬   ২২ সফর ১৪৪১

কুমিল্লার ধ্বনি
৬৭

টেকনাফ স্থলবন্দরে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি রাজস্ব আদায়

প্রকাশিত: ৩ জুলাই ২০১৯  

কক্সবাজারের টেকনাফ স্থলবন্দরে জুন মাসে লক্ষমাত্রার চেয়ে প্রায় তিন কোটি টাকা বেশি রাজস্ব আদায় হয়েছে। এ মাসে আট কোটি ৪০ লাখ টাকা রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিলো। তবে ২০২টি বিল অব এন্ট্রির মাধ্যমে ১১ কোটি ৩৮ লাখ ৫২ হাজার টাকা রাজস্ব আদায় হয়েছে।

টেকনাফ স্থলবন্দরের শুল্ক কর্মকর্তা মো. ময়েজ উদ্দীন বলেন, এ মাসে ৩৪ কোটি ৭৪ লাখ ১৪ হাজার টাকার পণ্য মিয়ানমার থেকে আমদানি হয়েছে। অপরদিকে ৪১টি বিল অব এক্সপোর্টের বিপরীতে এক কোটি ২৫ লাখ ৫৪ হাজার টাকার পণ্য মিয়ানমারে রফতানি হয়েছে। এছাড়া শাহপরীর দ্বীপ করিডোরে মিয়ানমার থেকে পাঁচ হাজার ৬৬২টি গরু আমাদানি হয়েছে। তাছাড়া তিন হাজার ৫৫৭টি মহিষ আমদানি করে গবাদি পশু থেকে সর্বমোট ৫০ লাখ ৮৮ হাজার ৫০০ টাকা রাজস্ব আদায় হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, গেল অর্থ বছরের দুয়েক মাস ব্যতিত অধিকাংশ সময় টেকনাফ স্থলবন্দরে ব্যবসার ভালো পরিবেশ ছিল। ব্যবসায়ীরা পর্যাপ্ত পণ্য আমদানি করেছেন। পাশাপাশি শুল্ক বিভাগের সবাই শুল্ক বাড়াতে সঠিকভাবে আমদানি পণ্যের পরীক্ষা-নিরীক্ষার পাশাপাশি আন্তরিক ও কঠোর পরিশ্রম করেছেন। ফলে সবার আন্তরিক চেষ্টায় রাজস্ব আয় লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে।

টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে মিয়ানমার থেকে কাঠ, হিমায়িত মাছ, শুটকি, আচার, মসলা, গবাদি পশুসহ নানা পণ্য আমদানি হয়। অপরদিকে গার্মেন্টস পণ্য, প্লাস্টিক সামগ্রী, ওষুধ ও সিমেন্ট মিয়ানমারে রফতানি হয়।

কুমিল্লার ধ্বনি
কুমিল্লার ধ্বনি
এই বিভাগের আরো খবর