ব্রেকিং:
এলপিএলের নিলামে পাঁচ টাইগার ক্রিকেটার, আছেন সাকিবও দেশে একদিনে ২২ মৃত্যু, শনাক্ত দেড় হাজারের বেশি ‘পাত্র চাই’ বিজ্ঞাপনে ৩০ কোটি টাকা আত্মসাত করল সাদিয়া নারায়ণগঞ্জে মসজিদে আবারো বিস্ফোরণ, নিহত ১ এইচএসসি পরীক্ষার বিষয়ে যা জানালো আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিয়ন্ত্রণে আসছে কঠোর আইন প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি বিভাগকে সম্মাননা প্রদ নাইজেরিয়ায় ধর্ষককে খোজাকরণ আইন পাস চাকরির বয়স ১০ বছর হলে উচ্চতর গ্রেডে বাধা নেই অতিরিক্ত দামে পেঁয়াজ বিক্রির অপরাধে ব্যবসায়ীদের জরিমানা আশুগঞ্জ মোকামে ধান সংকট, লোকসানে চাতাল মালিকরা বাসে তরুণীকে পালাক্রমে ধর্ষণ, অভিযুক্ত চালক-হেলপার গ্রেফতার রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘের ভূমিকায় হতাশ বাংলাদেশ বাড়লো একাদশে ভর্তির সময় সাত দেশ থেকে আসছে ৭৯ হাজার টন পেঁয়াজ বিশ্বে করোনায় মৃত্যু সাড়ে ৯ লাখ ছাড়াল আখাউড়া স্থলবন্দরে বিএসএফ মহাপরিচালক মাদকের বড় চালানসহ বাবা ছেলে আটক দূর্গাপূজায় থাকছে না বর্ণিল আলোকসজ্জা স্বামী হত্যায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত সুফিয়া গ্রেপ্তার
  • শনিবার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ৪ ১৪২৭

  • || ৩০ মুহররম ১৪৪২

৪২

নিরাপত্তা চেয়ে হাজীগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০  

মুক্তিযোদ্ধা ওমর আলী শেখ ও তার কন্যা দিনাজপুর জেলার ঘোড়াঘাট উপজেলার ইউএনও ওয়াহিদা খানমের উপর দুর্বৃত্তদের হামলার প্রতিবাদে হাজীগঞ্জে মানববন্ধন করেছেন হাজীগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধারা। গতকাল বুধবার সকাল ১১টায় উপজেলা পরিষদ চত্বরে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

হাজীগঞ্জ উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা-সন্তানদের আয়োজনে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আব্দুর রহমান বিএসসির সভাপ্রধানে মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আমিন ও মুক্তিযোদ্ধা মাহবুবুল আলম চুন্নুর যৌথ সঞ্চালনায় এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে মুক্তিযোদ্ধা ওমর আলী শেখ ও তাঁর কন্যা ইউএনও ওয়াহিদা খানমের উপর বর্বরোচিত হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে হামলায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান বক্তারা। এ সময় তারা বলেন, মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয় নয়, আমরা প্রধানমন্ত্রীর অধীনে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকতে চাই।

মুক্তিযোদ্ধারা বলেন, আগামী ১০/১৫ বছর পরে মুক্তিযোদ্ধাদের খুঁজে পাওয়া যাবে না। আমরা ও আমাদের পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমরা বেঁচে না থাকলে আমাদের সন্তানদের কী হবে। তাই মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করে মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের জন্যে সুরক্ষা আইনের দাবি জানান।

সাংবিধানিক স্বীকৃতি দাবি করে তারা আরো বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছরে মুক্তিযোদ্ধাদের সাংবিধানিকভাবে স্বীকৃতি দেয়া হয়নি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষসহ সাধারণ জনগণ মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেয়। এটি ছিলো জনযুদ্ধ। কিন্তু আজ অনেকে সামরিক যুদ্ধ বলছে। সাংবিধানিক স্বীকৃতি না থাকায় আজ এই প্রশ্ন।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন অ্যাডঃ রুহুল আমিন, মোঃ মফিজুল ইসলাম, আবুল বাশার সর্দার, মোঃ খোরশেদ আলম, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান রবিউল আউয়াল বিপ্লব প্রমুখ।

বক্তব্য শেষে বঙ্গবন্ধুসহ সপরিবারে নিহত এবং মহান মুক্তিযুদ্ধসহ সকল শহিদ ও নিহত মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন মুক্তিযোদ্ধা মোক্তার আহমেদ।

এ সময় মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন, তকদিল হোসেন, সিরাজুল ইসলাম, আবুল কালাম, মফিজুল ইসলাম, কামাল হোসেন মজুমদার, আব্দুল আউয়াল পাটোয়ারী, আব্দুর রবসহ অর্ধ-শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা এবং তাদের সন্তানেরা উপস্থিত ছিলেন।

কুমিল্লার ধ্বনি
সারাবাংলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর