ব্রেকিং:
তিতাসে সিয়াম হত্যারয় দুই জনের স্বীকারোক্তি পুরো দেশকে উচ্চগতির ইন্টারনেটের আওতায় আনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে এইচএসসি পাসে ডিএসসিসিতে চাকরি, আবেদন করুন দ্রুত দ্রুত তওবাকারীদের সম্পর্কে কোরআনে যা বলা হয়েছে বিমানবন্দরে সাফজয়ী নারী ফুটবলারদের লাগেজ ভেঙে ডলার-টাকা চুরি সৌদি আরবে আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতায় হাফেজ তাকরিম তৃতীয় কুমিল্লায় ইয়াবা বিক্রির সময় ভারতীয় নাগরিকসহ ২ জন আটক রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে জাতিসংঘের জোরালো ভূমিকা চান প্রধানমন্ত্রী সাবিনাদের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে ছাদখোলা বাস প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাঙচুর: সোহাগ আলীর ১০ বছরের কারাদণ্ড শেখ হাসিনাকে পাকিস্তান সফরের আমন্ত্রণ শেহবাজ শরিফের সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণ ৪ শর্তে শিথিল জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগ দিতে নিউইয়র্ক পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী কুমিল্লায় চার হাসপাতাল সিলগালা, ৩ লাখ টাকা জরিমানা মিয়ানমারের ব্যাপারে সর্বোচ্চ সংযম দেখাচ্ছে বাংলাদেশ:প্রধানমন্ত্রী সিপিডিতে ভালো পদে চাকরির সুযোগ, শুরুতেই পাবেন ৩৫০০০ ঘুমধুম সীমান্তের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের দুটি বাস দিল পুলিশ লক্ষ্মীপুরে ১৫ জুয়াড়ি আটক লন্ডন পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী যেখানে সন্ধ্যার পরই জেলার সঙ্গে উপজেলার যোগাযোগ বন্ধ
  • রোববার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১০ ১৪২৯

  • || ২৭ সফর ১৪৪৪

পুলিশের কাছ থেকে আসামি ভাইকে ছিনিয়ে নিলেন চেয়ারম্যান!

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ১০ সেপ্টেম্বর ২০২২  

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় পুলিশের কাছ থেকে আসামি ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. শেখ জাকিরের বিরুদ্ধে। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানায় এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত শেখ জাকির বাঙ্গরা পূর্ব ইউপির চেয়ারম্যান। আসামি আকরাম হোসেন (৩২) ওই চেয়ারম্যানের ছোট ভাই ও বাঙ্গরা গ্রামের শেখ রমিজ উদ্দিনের ছেলে।

এ ঘটনায় এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ৪ সেপ্টেম্বর সকাল ১১টার দিকে বাঙ্গরা বাজারের অগ্রণী ব্যাংকের সামনে চেয়ারম্যানের ছোট ভাই আকরাম হোসেন দৌলতপুর গ্রামের ইকবাল হোসেনের ছেলে ফুয়াদ আল সাইদের কাছ থেকে মোবাইল ও টাকা ছিনিয়ে নেন। এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয় ওই রাতেই। ঘটনার তদন্ত শেষে থানায় নিয়মিত মামলা হয় গত বৃহস্পতিবার বিকেলে। গতকাল সন্ধ্যা ৭টার দিকে আকরাম হোসেনকে গ্রেপ্তার করতে বের হয়ে বাঙ্গরা বাজারেই তাঁকে পেয়ে যায় পুলিশ। তাঁকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে আসার সময় পথে লোকজন নিয়ে ব্যারিকেড দিয়ে পুলিশের কাছে ওয়ারেন্টের কপি দেখতে চান চেয়ারম্যান শেখ জাকির। এ সময় পুলিশের সঙ্গে বাদানুবাদ হয়। এক পর্যায়ে হাতাহাতি করে লোকজনের সহায়তায় ভাইকে পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেন জাকির।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চেয়ারম্যান শেখ জাকির মুঠোফোনে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমার ছোট ভাই আকরামকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে নেওয়ার সময় ওয়ারেন্টের কপি দেখতে চাই। এ সময় এক কনস্টেবল আমার বুকে লাথি মারলে আমি মাটিতে লুটিয়ে পড়ি। এরপর উপস্থিত লোকজনের মধ্যে হৈচৈ পড়ে যায়। এর পরের ঘটনা আমি আর বলতে পারছি না। ’

বাঙ্গরা বাজার থানার ওসি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন বলেন, ‘চেয়ারম্যান শেখ জাকিরের ছোট ভাই আকরামের বিরুদ্ধে মামলা ছিল। এসআই রনি চৌধুরী তাঁকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে আসার সময় চেয়ারম্যান ও তাঁর লোকজন আকরামকে ছিনিয়ে নেন। আমরা ফোর্স সংখ্যা বাড়িয়ে তাঁকে গ্রেপ্তারের চেষ্টায় আছি।