ব্রেকিং:
সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে পরিবহন ধর্মঘট,পণ্যের দাম বৃদ্ধির পাঁয়তারা! কয়েদি পোষাকে ফাঁসির অপেক্ষায় দিন গুণছেন সিরাজউদ্দৌলা দুর্ধর্ষ চোর ইসমাইল গ্রেফতার তিন ফার্মেসীকে জরিমানা মেকআপ এন্ড নেইল আর্ট বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা চাঁদা না পেয়ে ব্রিকফিল্ড ম্যানেজারকে পিটিয়ে আহত অসহ্য যন্ত্রনা নিয়ে পরীক্ষা দিচ্ছে তাহসিন পেট্রোল বোমা মামলায় মালামাল ক্রোকের আদেশ পেছাল শক্তিশালী দল গড়েছে কুমিল্লা ওয়ারিয়র্স বিনামূল্যে কৃষি উপকরণ বিতরণ চিকিৎসকের জীবন বাঁচাতে সাহায্যের আবেদন ১০ লাখ টাকার সেগুন কাঠ আটক আবর্জনার স্তূপে ৭০ বস্তা পেঁয়াজ! সাজেকে চান্দের গাড়ির ভাড়া নির্ধারণ দৃশ্যমান হচ্ছে পদ্মা সেতুর আড়াই কিলোমিটার বেড়েছে ডলারের দাম ফোনের স্টোরেজ বাড়াবেন যেভাবে রোহিঙ্গাদের জন্য নেদারল্যান্ডের ৩৯ লাখ পাউন্ড অনুদান ক্যানসারের বিরুদ্ধে লড়তে সক্ষম কাঁচা মরিচ! র‌্যাবের ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলমকে হাইকোর্টে তলব

বুধবার   ২০ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৬ ১৪২৬   ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

কুমিল্লার ধ্বনি
৪৮৩

প্রধান শিক্ষক ছাড়াই চলছে ২৯৫টি বিদ্যালয়

প্রকাশিত: ১৫ অক্টোবর ২০১৯  

কুমিল্লা জেলা ১৭টি উপজেলার ২৯৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নেই। স্কুল গুলো চলছে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দিয়ে। সহকারি শিক্ষক নেই ১২ শ’ ০৮ জন। জেলার নাঙ্গলকোট উপজেলায় প্রধান শিক্ষক ও সহকারি প্রধান শিক্ষক ও সহকারি শিক্ষকের পদ বেশি খালি রয়েছে। প্রধান শিক্ষক ও সহকারি শিক্ষক সংকটের কারণে শিক্ষার্থীদের পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে। দীর্ঘদিন এই সংকট বিরাজ করছে।

জেল প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্র জানায়, জেলায় দুই হাজার ১০৭টি সরকারি শিক্ষকের পদ রয়েছে ১২ হাজার ৭০৮টি। আদর্শ সদর উপজেলায় প্রধান শিক্ষক সংকট ১০ জন, সহকারি শিক্ষক সংকট ৬১ জন, লাকসাম উপজেলায় প্রধান শিক্ষক সংকট সাতজন, সহকারি শিক্ষক সংকট ৪৫ জন, দেবিদ্বার উপজেলায় প্রধান শিক্ষক সংকট ২২ জন, সহকারি শিক্ষক সংকট ৪০ জন, মুরাদনগর উপজেলায় প্রধান শিক্ষক সংকট ২৭ জন, সহকারি শিক্ষক সংকট ১২৪ জন, দাউদকান্দি উপজেলায় প্রধান শিক্ষক সংকট ২২ জন, সহকারি শিক্ষক সংকট ১৪৪ জন, চৌদ্দগ্রাম উপজেলায় প্রধান শিক্ষক ২২ জন, সহকারি শিক্ষক সংকট ১১৪জন, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলায় প্রধান শিক্ষক সংকট ১১ জন, সহকারি শিক্ষক সংকট ৫৮ জন, বরুড়া উপজেলায় প্রধান শিক্ষক সংকট ৬ জন, সহকারি শিক্ষক সংকট ৭৭ জন, বুড়িচং উপজেলায় প্রধান শিক্ষক সংকট ৩৭ জন, সহকারি শিক্ষক সংকট ১৪ জন, চান্দিনা উপজেলায় প্রধান শিক্ষক সংকট ৭ জন, সহকারি শিক্ষক সংকট ৭০জন, হোমনা উপজেলায় প্রধান শিক্ষক সংকট ২১ জন, সহকারি শিক্ষক সংকট ৪২ জন, নাঙ্গলকোট উপজেলায় প্রধান শিক্ষক সংকট ৪০ জন, সহকারি শিক্ষক সংকট ১৫৭ জন, মেঘনা উপজেলায় প্রধান শিক্ষক সংকট ১২ জন, সহকারি শিক্ষক সংকট ২৪ জন, মনোহরগঞ্জ উপজেলায় প্রধান শিক্ষক সংকট ২০ জন, সহকারি শিক্ষক সংকট ৯৮ জন, সদর দক্ষিণ উপজেলায় প্রধান শিক্ষক সংকট ৯ জন, সহকারি শিক্ষক সংকট ১১ জন ও লালমাই উপজেলায় প্রধান শিক্ষক সংকট ৫ জন, সহকারি শিক্ষক সংকট ৪০ জন।

এদিকে নাঙ্গলকোট বান্নাগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পদ আছে পাঁচটি। তবে প্রধান শিক্ষক ছাড়া দুইজন মাত্র সহকারি শিক্ষক। তার মধ্যে একজন আছেন মেডিকেল ছুটিতে। এখন প্রধান শিক্ষক ও এক সহকারি শিক্ষক মিলে ১৩৭ জন শিক্ষার্থীকে পাঠদান করেন। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ ইমতিয়াজ উদ্দিন বলেন, গত তিন বছর ধরে আমরা শিক্ষক সংকটে রয়েছি। এতে শিক্ষার্থীদের পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে।

নাঙ্গলকোট উপজেলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন মজুমদার বলেন, নাঙ্গলকোটে প্রধান শিক্ষক ও সহকারি শিক্ষক সংকটের কারণে শিক্ষার্থীদের পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে। বিশেষ করে উপজেলার বাগড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বান্নাগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বিরুলী একে এম হিরমত আলী প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ কয়েকটি বিদ্যালয়ে দুইজন করে শিক্ষক রয়েছেন। ডেপুটেশনে কিছু শিক্ষক এনে বিদ্যালয় গুলোর পাঠদান করা হচ্ছে।

শিক্ষক সংকটে থাকা একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থীর পিতা মোঃ নাইমুল ইসলাম বলেন, শিক্ষক সংকটে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনায় ব্যাঘাত ঘটছে। শুন্যপদে শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে এ সংকট দূর করা উচিত।

কুমিল্লা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ আবদুল মান্নান বলেন, আমরা সিনিয়র শিক্ষকদের তালিকা করে অধিদপ্তরে পাঠাবো। এতে প্রধান শিক্ষকের সংকট দূর হবে। এদিকে সহকারি শিক্ষকের লিখিত পরীক্ষা হয়েছে। সামনে মৌখিক পরীক্ষা। তাদের নিয়োগ দিরে সহকারি শিক্ষকের সংকটও কমবে।

কুমিল্লার ধ্বনি
কুমিল্লার ধ্বনি
এই বিভাগের আরো খবর