ব্রেকিং:
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবাষির্কী উপলক্ষে জাতিসংঘের স্মারক ডাকটিকিট ‘সেনাবাহিনী দোকান ঘর তুলে না দিলে পথে বসতে হতো’ দেশে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ১৭৬৪, মৃত্যু ২৮ উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে বিপর্যয় ঠেকানোর উদ্যোগ বাজেটে এবারও কালো টাকা সাদা করার সুযোগ থাকছে বাংলাদেশকে আরো করোনা চিকিৎসা সরঞ্জাম দিল যুক্তরাষ্ট্র মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতের উন্নয়নে সহায়তা দিতে আগ্রহী মিশর করোনায় প্রতি তিনজনে এক জন পুলিশ সুস্থ হচ্ছে হাটবাজার এলাকায় হবে কংক্রিটের সড়ক হাইকোর্টে স্থায়ী নিয়োগ পেলেন ১৮ বিচারক পুলিশের শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান, গভীর সুন্দরবন থেকে ছয় কিশোরকে উদ্ধার বাংলাদেশের পাশে আছে যুক্তরাজ্য করোনা মোকাবেলায় বাংলাদেশের সঙ্গে ৬ দেশের একাত্মতা প্রধানমন্ত্রীকে জাতিসংঘ মহাসচিবের শুভেচ্ছা করোনা আক্রান্ত বাবার কষ্ট সহ্য করতে না পেরে মেয়ের আত্মহত্যা করোনায় আক্রান্ত কুমেক হাসপাতালের ১৯ জন স্বাস্থ্যকর্মী চাঁদপুরে নতুন করে আরো ৭ জনের করোনা শনাক্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আরো ১৭ জনের করোনা শনাক্ত কুমিল্লায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত ৪০ দেশে ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ আক্রান্ত, মৃত্যু ২৩
  • রোববার   ৩১ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৭ ১৪২৭

  • || ০৭ শাওয়াল ১৪৪১

১০২

বিএনপির সমাবেশে হট্টগোলে খেই হারিয়ে ফেললেন মির্জা ফখরুল

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

‘চুপ, চুপ আপনারা থামেন। আপনাদের হট্টগোলে আমি বক্তব্যের খেই হারিয়ে ফেলেছি। থামেন।’ রবিবার রাজশাহীতে বিএনপির বিভাগীয় মহাসমাবেশে উপস্থিত নেতাকর্মীদের থামাতে এভাবেই বলতে শোনা যায় দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে। কিন্তু তিনি বারবার বলেও নেতাদের থামাতে ব্যর্থ হন।

সমাবেশে উপস্থিত নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মির্জা ফখরুল ইসলাম মঞ্চে উঠার সঙ্গে সঙ্গেই হট্টগোল শুরু করেন সমাবেশে আসা স্থানীয় নেতাকর্মীরা। ফখরুলের বক্তব্য না শুনে নেতারা হট্টগোল শুরু করেন এবং নানা রকম স্লোগান দেন। ফখরুল একাধিকবার তাদেরকে থামানোর চেষ্টা করেন কিন্তু তিনি থামাতে ব্যর্থ হন। একপর্যায়ে ফখরুল উত্তেজিত হয়ে নেতাকর্মীদের হট্টগোলে বক্তব্যের খেই হারিয়ে ফেলেছেন বলতেও শোনা যায়। তারপরও নেতাকর্মীরা থামেননি। এমনকি এসময় বেশ কয়েকজন হাতাহাতি ও মারামারিতে লিপ্ত হন। মঞ্চের সামনে থাকা মহিলা দলের নেতারা সামনে বসার চেয়ারে না বসে দাড়িয়ে দাড়িয়ে গল্প করতে দেখা গেছে। এতে পেছনে বসে থাকা নেতারা মঞ্চ দেখতে পাননি।

এদিকে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বক্তব্য দেওয়ার সময়ও স্থানীয় নেতাদের এমন আচরণের জন্য দলীয় কোন্দলকে দায়ী করছেন দলের সিনিয়র নেতারা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় সিনিয়র এক বিএনপি নেতা বলেন, এখানে জেলা ও মহানগর বিএনপির মধ্যে নানা কোন্দল রয়েছে। মহানগর বিএনপির সভাপতির মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের সঙ্গে খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনুর চরম বিরোধ রয়েছে। আবার জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সাইদ চাঁদের সঙ্গে আহ্বায়ক জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি নাদিম মোস্তফার রয়েছে চরম বিরোধ। ফলে এক পক্ষের লোকজন অপরপক্ষকে সহ্য করতে পারছিলেন না। সে জন্য এমন হট্টগোল হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

কুমিল্লার ধ্বনি
রাজনীতি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর