ব্রেকিং:
পাকিস্তানকে ছাড়িয়ে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি পশু কোরবানি বাংলাদেশে বন্যাদুর্গতদের পুনর্বাসনে রয়েছে ১২০ কোটি টাকা বরাদ্দ ঘুষদাতার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী হুজুর সেজে ধর্ষককে ধরলেন পুলিশ কর্মকর্তা বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর ডেঙ্গুর বিস্তার রোধে জনসচেতনতা জরুরি বিয়ের অনুষ্ঠানে বোমা হামলা, নিহত বেড়ে ৬৩ ইন্দোনেশিয়া ও ফিলিপাইনের রমণীদের পছন্দ বাংলাদেশি ছেলে রোহিঙ্গা নির্যাতন তদন্তে ঢাকায় মিয়ানমারের তদন্ত দল টাইগারদের হেড কোচ হলেন রাসেল ডমিঙ্গো ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’ ১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ড ছিল মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে কুমিল্লায় র‌্যাবের অভিযানসাড়ে ৫০০ ইয়াবাসহমাদক ব্যবসায়ী আটক স্মার্টকার্ড পাবে ছয় বছরের শিশুও! ডেঙ্গু আক্রান্তদের ৮৪ শতাংশ সুস্থ হয়ে ফিরেছেন ল্যান্ড ফোনের মাসিক লাইন রেন্ট বাতিল প্রসব বেদনা নিয়েই ছয় কিলোমিটার হাঁটলেন কাশ্মীরি মা যুদ্ধ শুরু! ভারতের ৫ পাকিস্তানের ৩ সেনা নিহত ঈদের আগে ৯ দিনে সর্বোচ্চ রেমিটেন্সের রেকর্ড সাড়ে ৩ হাজার রোহিঙ্গা ফিরিয়ে নিচ্ছে মিয়ানমার

সোমবার   ১৯ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৩ ১৪২৬   ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

কুমিল্লার ধ্বনি
১৮১৪

ব্রাহ্মণদের দাবি বাস্তবায়নের আহ্বান

প্রকাশিত: ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

সনাতন ধর্মীয় উচ্চতর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠার দাবিসহ বেশ কিছু  উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্রাহ্মণ সংসদ।

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ ব্রাহ্মণ সংসদ আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়। এ সময় বাংলাদেশ ব্রাহ্মণ সংসদ সরকারকে তাদের কয়েকটি উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে সহযোগী মনোভাব প্রকাশের আহ্বান জানান। উদ্দেশ্যগুলো হল-

বাংলাদেশ সনাতন ধর্মীয় উচ্চতর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা। বর্তমান সংস্কৃত টোল চতুষ্পাঠী ও কলেজে নিয়োজিত শিক্ষকদের মাসিক বেতন বৃদ্ধি। পাশাপাশি  অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত বাধ্যতামূলক সংস্কৃত শিক্ষা ব্যবস্থার প্রচলন ও সংস্কৃত ভাষা চর্চা। দেশের সরকারি আধা সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ধর্মীয় পণ্ডিত নিয়োগ করা। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের দেব-দেবীর পূজা ব্রাহ্মণদের দিয়ে করানো। এছাড়া মন্দিরের পুরোহিতের সরকারি কোষাগার থেকে সম্মানি প্রদান করা ও মাসিক ভাতা প্রদানের ব্যবস্থা করা।

সম্মেলনে বাংলাদেশ ব্রাহ্মণ সংসদের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা লেফটেন্যান্ট কর্নেল নিরঞ্জন ভট্টাচার্য বলেন, প্রায় ৮শ বছর আগে ভারতবর্ষে রাজা বল্লাল সেনের শাসনামলে ব্রাহ্মণ সম্মেলন হয়েছিল। এরপরে ব্রাহ্মণদেরকে নিয়ে আর কোন সম্মেলন হয়েছে কি না, এ ব্যাপারে কোনো তথ্য প্রমাণও নেই। সনাতন ধর্মালম্বীদের কল্যাণে বাংলাদেশ ব্রাহ্মণ সংসদ আজ ব্রাহ্মণ সম্মেলন করতে সক্ষম হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্রাহ্মণ সংসদের মহাসচিব বিজয় কৃষ্ণ ভট্টাচার্য বলেন, মানুষদের শিক্ষা-দীক্ষা সামাজিক ও ধর্মীয় উন্নয়নে গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা রাখায় এদেশের জনগণ ব্রাহ্মণ সম্প্রদায়কে শ্রেষ্ঠত্বের আসনে বসিয়েছে। পৃথিবীর অন্য দেশগুলোতে যখন মানুষ উচ্ছৃঙ্খল জীবন-যাপন করতো তখন ব্রাহ্মণরা গৃহে গৃহে সংস্কৃত কলেজ, মহাবিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করে সমগ্র বিশ্বকে শিক্ষার আলোয় আলোকিত করতে ব্রতী ছিল।

তিনি আরো বলেন, এক সময় প্রতিটি ব্রাহ্মণ পরিবার ছিল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মতো। সংস্কৃত শিক্ষা ব্যবস্থা বিলুপ্তির ফলে আমাদের সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও শাশ্বত ধর্মগ্রন্থ শুদ্ধরূপে চর্চা করতে পারছি না। এসবের ফলে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সন্তানও আজ ধর্ম বিমুখ নাস্তিকে পরিণত হচ্ছে। 

সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন ব্রাহ্মণ সংসদের উপদেষ্টা জীবন লাল গোস্বামী, প্রেসিডিয়াম সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা সুব্রত চক্রবর্তী, প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যক্ষ অহিভূষণ চক্রবর্তী, নির্বাহী সভাপতি অসিত কুমার মুকুটমণি, সিনিয়র সহ-সভাপতি সাগর কৃষ্ণ চক্রবর্তী, সিনিয়র সহ-সভাপতি নেপাল চক্রবর্তী,  রংপুর বিভাগীয় যুগ্ম মহাসচিব অধ্যক্ষ উদয় শংকর চক্রবর্তী, খুলনা বিভাগের মহাসচিব অধ্যাপক অখিল চক্রবর্তীসহ বাংলাদেশ ব্রাহ্মণ সংসদ কমিটির সারা দেশের বিভিন্ন সদস্য।

কুমিল্লার ধ্বনি
কুমিল্লার ধ্বনি
এই বিভাগের আরো খবর