ব্রেকিং:
স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মানছে না কেউই নবীনগরে মোবাইল রিচার্জের তুচ্ছ ঘটনায় সংঘর্ষে আহত ৮ সন্ত্রাসী হামলা, তিন বাড়িসহ ১১ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাংচুর বাড়ির পাশে ঘাস কাটতে গিয়ে ফিরে আসেনি মেয়েটি এখনো বিপদসীমার উপরে তিতাসের পানি বেড়াতে এসে পানিতে ডুবে দুই ভাইসহ ৩ শিশুর মৃত্যু বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল দেশ আত্মনির্ভরশীল হবে সীমার মাঝে অসীম তুমি অস্ট্রিয়ায় `বঙ্গবন্ধু স্মৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ২০২০` উদ্বোধন বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার আধুনিক রূপ হচ্ছে ডিজিটাল বাংলাদেশ: পলক জাতির পিতার আদর্শ বাস্তবায়নে কাজ করছে সরকার ॥ প্রধানমন্ত্রী মানুষ যেন উন্নত জীবন পায়, সেটাই সরকারের লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী অসহায়দের মুখে খাবার তুলে দিতে সরকার সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে দেশে হিন্দু বৌদ্ধ মুসলমান খ্রিস্টান কোনো ভেদাভেদ নেই: তথ্যমন্ত্রী ঈদে কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া চেক সাংবাদিকদের হাতে তুলে দিলেন মাশরাফি মতলবিরা সফলতার দুর্গে ফাটল ধরানোর অপচেষ্টা করছে: কাদের খাদ্য নিরাপত্তায় বাংলাদেশকে ২০২ মিলিয়ন ডলার ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক নাটোরে আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে ভাত-মাংস পাঠালেন পলক অসহায় ও দুস্থদের জন্য বাংলাদেশ ছাত্রলীগের পশু কোরবানী
  • মঙ্গলবার   ০৪ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২০ ১৪২৭

  • || ১৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

২৮০৮

মস্তিষ্কের মাত্র দশ ভাগ ব্যবহারেই মানুষ সৃষ্টি সেরা জীব!

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ১৮ জুন ২০১৯  

মানবজাতিকে সৃষ্টির সেরা জীব হিসেবে বিবেচনা করা হয়। আমাদের এই অসম্ভবকে সম্ভব করে দেখানোর ক্ষমতা এবং শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনে সবথেকে বড় ভূমিকা পালন করে মস্তিষ্ক। প্রাচীন বিজ্ঞানীদের মধ্যে একটি ভুল ধারণা প্রচলিত ছিল। তাদের মতে যে প্রাণীর মস্তিষ্ক যত বড় সে তত বুদ্ধিমান। কিন্তু মানব মস্তিষ্ক অন্যান্য বড় প্রাণীদের চেয়ে ছোট হলেও মানব মস্তিষ্ক এমনভাবে গঠিত যে মানুষ যেকোনো পরিস্থিতিতে টিকে থেকে নতুন সব সমস্যার সমাধানে সক্ষম। যা পৃথিবীর অন্য কোনো প্রাণীর পক্ষে সম্ভব নয়। মানুষ নিজের মস্তিষ্কের জোরে সেই আদিকাল থেকে  ভয়ানক সব পরিবেশে টিকে থেকে করেছে নতুন সব আবিষ্কার। এগিয়ে নিয়েছে মানব সভ্যতাকে। কিন্তু যদি বলা হয় মানুষ নিজের মস্তিষ্কের শুধুমাত্র ১০ ভাগ ব্যবহার করে এবং বাকি ৯০ ভাগই অব্যবহৃত? তবে কী হত যদি মানুষ নিজ মস্তিষ্কের শত ভাগই ব্যবহারে সক্ষম হত?

মানব মস্তিষ্কের গঠন অন্যান্য প্রাণীদের থেকে কিছুটা জটিল। বিজ্ঞানীরা শত শত বছরের গবেষণা করেও মানব মস্তিষ্কের সকল জটিলতার সমাধান করতে পারেনি। তবে বিংশ শতাব্দীর বিজ্ঞানীদের ধারণা ছিল মানুষ মস্তিষ্কের শুধুমাত্র মাত্র ১০ ভাগই ব্যবহারে সক্ষম। তাদের এই ধারণা পুরোপুরি সত্য না হলেও আংশিক সত্য। এই ধারণার পেছনের কারণ হল মস্তিষ্কের গঠন। মানব মস্তিষ্কের ১০ ভাগ নিউরন সেল এবং বাকি ৯০ ভাগই গ্লিয়াল সেল। এই ১০ ভাগ নিউরন সেলকে ঘিরে থাকে ৯০ ভাগ গ্লিয়াল সেল। তবে এই ১০ ভাগ নিউরন সেলই মানুষের সব চিন্তা, চেতনা, নতুন আবিষ্কার এবং সমস্যা সমাধান করে থাকে। বাকি ৯০ ভাগ গ্লিয়াল সেল নিউরনকে তার কাজের জন্য সহায়তা করে এবং প্রয়োজনীয় শক্তির জোগান দিয়ে থাকে। তাছাড়াও গ্লিয়াল সেল এর বিভিন্ন অংশ মানব শরীরের বিভিন্ন অংগের কর্মকান্ডের জন্য দায়ী। মস্তিষ্কের এমন গঠনের কারণেই বিংশ শতাব্দীর বিজ্ঞানীদের মনে এই ধারণা জন্ম নেয়।

মানুষ যদি মস্তিষ্কের ১০০ ভাগই ব্যবহারে সক্ষম হতো তাহলে খুব সহজেই সমাধান হত পৃথিবীর সকল সমস্যার। হয়তো নিমিষেই প্রতিষেধক তৈরি হত দুরারোধ্য সব ব্যাধির। আবিষ্কার হতো নতুন সব প্রযুক্তির। সমাধান হতো সকল অমিমাংসিত রহস্যের। কিন্তু আমাদের মস্তিস্কের পুরো অংশ শুধুমাত্র সমস্যা সমাধানে সক্ষম নয়। কারণ মানবদেহের সকল কর্মকান্ডই মস্তিষ্কের  মাধ্যমে নিয়ন্ত্রিত হয়। যদি মস্তিষ্ক পুরোপুরি চিন্তার কাজে ব্যবহৃত হত তবে হয়তো আমাদের শরীরের অন্যন্য অংশ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হত না। যে কারণে হতে পারত মৃত্যু। তবে চাইলেই বাড়ানো সম্ভব মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা।

যদি বলা হয় আইনস্টাইন এবং আপনার মস্তিষ্কের গঠন এবং নিউরন সংখ্যা সবই সমান। হ্যাঁ, পৃথিবীর সকল মানুষেরই মস্তিষ্কের গঠন সমান। তাহলে কিছু কিছু মানুষের বুদ্ধিমত্তা অন্যান্যদের থেকে বেশি কেন? এর কারণ চর্চা। মানব মস্তিষ্ক কিছুটা শরীরের পেশির মতই। ব্যায়াম এবং প্রয়োজনীয় পুষ্টি পেলে যেমন পেশি বৃদ্ধি পায় ঠিক তেমনিই মস্তিষ্কের বা বুদ্ধিমত্তারও বিকাশ ঘটানো সম্ভব। প্রিন্সটন ইউনিভার্সিটি গবেষণায় জানা গেছে, মস্তিষ্কের উদ্দীপনা বাড়াতে প্রতিনিয়ত নতুন পরিস্থিতি নিয়ে ভাবার পাশাপাশি কঠিন সব সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করতে হবে। সেইসঙ্গে পর্যাপ্ত ঘুম ও পুষ্টিকর খাবার খেলে যেকোনো মানুষের মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা কয়েকগুণ বেড়ে যাবে।

কুমিল্লার ধ্বনি
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর