ব্রেকিং:
কুমিল্লায় শ্যামলী পরিবহনের বাসচাপায় নিহত ৩ কুমিল্লায় গ্রাহকদের ৪০ কোটি টাকা নিয়ে কোম্পানি উধাও ড্রিমলাইনার ‘রাজহংস’ এখন ঢাকায় দাউদকান্দিতে প্রতিবন্ধি কিশোরীকে ধর্ষণ: মামলা দায়ের লালমাই আ.লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন আগে খাল উদ্ধার তারপর চালু হবে ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট : তাজুল ইসলাম সংবাদকর্মীদের বেতন বাড়ল ৮৫ শতাংশ ফার্ম করে স্বাবলম্বী এক ঝাঁক তরুণ মুরাদনগরে শিশু ধর্ষনের ঘটনায় মাতব্বর গ্রেফতার হাজার কোটি ডলার বিনিয়োগ করবে ইউএই সোয়া কোটি টাকা লুটের অভিযোগে প্রতারক জামাল গ্রেফতার প্রাইভেটের পথে স্কুল ছাত্রীকে ছুরিকাঘাত ব্রাহ্মণপাড়ায় গ্রেফতার চার আসামি কারাগারে প্রধানমন্ত্রী পুলিশের প্যারেড পরিদর্শন করবেন আজ আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন ডিসেম্বরে শোভন-রাব্বানী বাদ, ছাত্রলীগের দায়িত্বে নাহিয়ান-লেখক কুমিল্লার ভারতীয় সীমান্ত থেকে চোরাইমালসহ ২ জন আটক আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় কুমিল্লার শিহাব লাকসামে অস্ত্রসহ কিশোর গ্যাংয়ের ছয় সদস্য আটক বদলে যাচ্ছে কারিগরি শিক্ষা, ৪০০ কোটি টাকার পরিকল্পনা

সোমবার   ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯   ভাদ্র ৩১ ১৪২৬   ১৬ মুহররম ১৪৪১

কুমিল্লার ধ্বনি
১০৮

মাছ চাষ প্রকল্পে ধান, লাভবান কৃষক

প্রকাশিত: ৩ জুন ২০১৯  

কুমিল্লার দাউদকান্দির অধিকাংশ গ্রামে মাছ চাষ প্রকল্পের প্লাবন ভূমিতে বিষমুক্ত ধান চাষ করে লাভবান হয়েছেন কৃষকরা। এতে মাছ চাষ লাভের পাশাপাশি নিজের শ্রম ও কম খরচে ধান চাষের সাফল্যে খুশি তারা।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর দাউদকান্দি উপজেলা কার্যালয়ের তথ্যানুযায়ী, উপজেলায় চলতি বছর সাত হাজার ৮০০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের চাষ হয়েছে। এর মধ্যে উপজেলার ইলিয়টগঞ্জ উত্তর ও ইলিয়টগঞ্জ দক্ষিণ ইউপির প্লাবন ভূমিতে মাছ চাষ প্রকল্পগুলোতে কম খরচে ধানের চাষ হয়েছে। ফলনও হয়েছে বেশি।

উপজেলার সিংগুলা গ্রামের কৃষক ওবায়দুল হক বলেন, ১৯৯৫ সালের আগে প্লাবন ভূমির মাঠগুলোতে বাঙ্গি, তরমুজ, ক্ষীরা, শসা, আমন ধান, পাট, গম, তিল, ঢ্যাঁড়স, টমেটো, পুঁইশাক ও মিষ্টিকুমড়ার চাষ করতাম। পরে কৃষকরা বছরের খোরাক নিশ্চিত করতে অন্যান্য ফসলের পাশাপাশি বোরো ধানের চাষে ঝুঁকে পড়েন। তবে পরিবারের সদস্যরা অন্য কাজের পাশাপাশি ধান চাষে সহযোগিতা করলে নিশ্চিত লাভবান হওয়া যায়। বছরে ছয় মাস মাছ চাষ ও ছয়মাস ফসল উৎপাদন হচ্ছে।

দক্ষিণ মোহাম্মদপুর গ্রামের কৃষক মো. আলম বলেন, উপজেলার মৎস্য চাষ প্রকল্পে ৪০ শতাংশ জমিতে বোরো ধানের চাষ করেছি। খরচ হয়েছে প্রায় এক হাজার টাকা। ২২ মণ ধান পেয়েছি। প্রতি মণ ধান ৫০০ টাকা দরে বিক্রি করলে ১১ হাজার টাকা পাব। তবে এই ধান বিক্রি করব না।

তিনি বলেন, বিষমুক্ত ধানের আবাদ করে খুশি। তিন সদস্যের পরিবারের সারা বছরের ভাতের জন্য ভাবতে হবে না। কাজের ফাঁকে ফাঁকে পরিশ্রম করে ধান চাষ করে লাভবান হয়েছি। এবার ফলন খুব ভালো হয়েছে।

বেকিনগর গ্রামের কৃষক শাহজাহান বলেন, ৯০ শতাংশ জমিতে বোরো ধানের চাষ করেছি। প্রতি ৩০ শতাংশে ফলন হয়েছে ১৮ থেকে ২০ মণ। খরচ হয়েছে চার হাজার টাকা। প্রতি মণ ধান ৫০০ টাকা হিসেবে ধরলে প্রায় ৩০ হাজার টাকার বিষমুক্ত ধান পেয়েছি। এতে পরিবারের ভাতের জোগান নিয়ে ভাবতে হবে না।

উপজেলার আদমপুর গ্রামের কৃষক আলী হোসেন বলেন, তিন একর জমিতে বোরো ধানের চাষ করেছি। পরিবারের সদস্যদের শ্রমে প্রতি ৩০ শতাংশে খরচ হয়েছে এক হাজার টাকা। প্রতি ৩০ শতাংশে ফলন হয়েছে ১৮ মণ। চলতি বছর শিলাবৃষ্টি ও পোকার আক্রমণের পরও ধানের ভালো ফলন হয়েছে। এতে অনেক খুশি আমি।

বঙ্গবন্ধু কৃষি পদকপ্রাপ্ত কৃষক বন্ধু খ্যাত অধ্যাপক মতিন সৈকত বলেন, দাউদকান্দিতে বিষমুক্ত ধান উৎপাদন করেছি। বুদ্ধি খাটিয়ে কষ্ট করে মুনাফা অর্জন করছি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সারোয়ার জামান বলেন, বোরো ধান চাষে কৃষক সচেতন হলে কম খরচে বিষমুক্ত অধিক ফলন পাওয়া সম্ভব। প্রাকৃতিক দুর্যোগের পরও এবার বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে।

কুমিল্লার ধ্বনি
কুমিল্লার ধ্বনি
এই বিভাগের আরো খবর