ব্রেকিং:
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিয়ের গেটের ডিজাইন নিয়ে সংঘর্ষ, আসামি ৯ শতাধিক কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, শ্বশুর বাড়িতে ধরা পড়ল দুই ধর্ষক ডিমের মূল্য তালিকা-ক্রয়ের রশিদ না থাকায় জরিমানা প্রবাসীদের প্রেমের ফাঁদে ফেলে অপহরণ, গ্রেফতার ৬ আখাউড়ায় চোরাই মোটরসাইকেলসহ যুবক আটক বাজারে চুরির ঘটনায় ৩ নৈশ প্রহরী গ্রেফতার ‘সাদা কালা’ গানে এবার ঝড় তুললেন নোয়াখালীর ৫ যুবক এক ঘণ্টায় শেষ বাংলাদেশের ম্যাচের সব টিকিট শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করবে ম্যানেজিং কমিটি ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না: আইনমন্ত্রী মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখায় জরিমানা গুনলো দুই ফার্মেসি ঝরে পড়া শিশুদের পাঠদানে ফেরাতে প্রশিক্ষণ দম্পতিকে শৌচাগারে আটকে রাখায় আত্মহত্যা চেষ্টা সরকারি ভবনে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সাশ্রয়ী ব্যবহারের নির্দেশনা জারি প্রত্যাবাসন নিরাপদ না হলে আবারো ফেরত আসবে রোহিঙ্গা ৪০ বছরের মধ্যে যুক্তরাজ্যের মূল্যস্ফীতি সর্বোচ্চ শিক্ষার্থীদের হেনস্তা করায় কুমিল্লায় ট্রেন আটকে প্রতিবাদ ইউক্রেন সফরে আসছেন এরদোগান ও গুতেরেস প্রেমের টানে বগুড়ায় এসে ধর্ষণের শিকার, গ্রেফতার ২ রাশিয়া থেকে জ্বালানি তেল কেনার উপায় খোঁজার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
  • বুধবার   ১৭ আগস্ট ২০২২ ||

  • ভাদ্র ৩ ১৪২৯

  • || ১৯ মুহররম ১৪৪৪

মুরাদনগরে বর্ষায় বেড়েছে নৌকার চাহিদা, ব্যস্ত কারিগররা

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ২৬ জুন ২০২২  

চলছে বর্ষাকাল। চারপাশের নদী, খাল-বিলে পানি আর পানি। বর্ষায় চলাচলে একমাত্র বাহন নৌকা। এই সময় নৌকার চাহিদা একটু বেশি থাকে। তাই কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় নৌকা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কারিগররা। পাশাপাশি চলছে পুরনো নৌকা মেরামতের কাজও। 

গত বছরের তুলনায় কাঠের দাম বেশি হওয়ায় এবার নৌকার মূল্য একটু বেশি বলে জানিয়েছেন ক্রেতারা। জমে উঠেছে নৌকা বিক্রি। মুরাদনগরসহ পার্শ্ববর্তী ৬টি উপজেলার দরিদ্র জনগোষ্ঠী অধ্যুষিত অঞ্চলের প্রায় লক্ষাধিক মানুষ জীবন-জীবিকার প্রয়োজনে মাছ শিকারের জন্য নৌকা ব্যবহার করে। পাশাপাশি যাতায়াতের জন্য নৌকার ওপর নির্ভরশীল তারা। 

স্থানীয়রা বলছেন, আগের মতো এখন নৌকার তেমন চাহিদা না থাকলেও আষাঢ় মাসে চাহিদা বেড়ে যায়। প্রতিবছর বর্ষায় উপজেলার অধিকাংশ জনপদ পানিতে থৈ থৈ করে। ডুবে যায় অনেক রাস্তাঘাট, নদী-নালা, খাল-বিল। যাতায়াত করতে হয় নৌকায়। মৎস্যজীবীরা মাছ ধরার কাজে ব্যবহার করে ছোট-বড় নৌকা। তাই বর্ষা মৌসুম আসলে এই অঞ্চলে বেড়ে যায় নৌকার কদর। এজন্য নৌকার চাহিদা মিটাতে এখন দিনরাত পরিশ্রম করে নৌকা তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা।

boatনৌকা তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা

সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার বালুছনা, কৈজুরী, কাঁঠালিয়াকান্দা ও পাঁচকিত্তাসহ বিভিন্ন গ্রামে নৌকা তৈরি ও মেরামতের কাজ চলছে। কেউ কাঠ কাটছেন, আবার কেউ নৌকায় আলকাতরা লাগাচ্ছেন। প্রখর রোদ ও বৃষ্টিকে উপেক্ষা করে বর্ষার আগমনের শুরু থেকে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। পরিবারের পুরুষদের পাশাপাশি নৌকা তৈরিতে সহযোগিতা করছেন নারীরা। ক্ষিতিশ চন্দ্র সরকার, বুলু সরকার, খোকন সরকার, বিপুল সরকারসহ অন্তত ১০টি পরিবার নৌকা তৈরির পেশায় যুক্ত। অন্যান্য মৌসুমে তারা কাঠমিস্ত্রির পেশায় যুক্ত থাকলেও বর্ষার মৌসুমে তৈরি করেন কাঠের নৌকা। এখানে তৈরি নৌকা এ উপজেলার শত বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী বৃহত্তম বাজার রামচন্দ্রপুর, ডুমুরিয়া ও ইলিয়টগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন বাজারে নিয়ে যাওয়া হয় বিক্রির জন্য। প্রতিটি নৌকা ৬-৮ হাজার টাকা বিক্রি করেন তারা। তা থেকে  নৌকাপ্রতি ১ হাজার ২০০ টাকা থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা পর্যন্ত লাভ হয়। 

নৌকার কারিগর লোহাগাড়া গ্রামের ক্ষিতিশ চন্দ্র সরকার বলেন, ‘৫০ বছর যাবত নৌকা তৈরির কাজ করছি। সামনে বর্ষা মৌসুম ইতোমধ্যে তৈরি করেছি ৫টি নৌকা। আগের মত নৌকার চাহিদা তেমন নেই, কিন্তু বর্ষার শুরুতে নৌকার চাহিদা থাকে। তাই বসে না থেকে পরিবারের ভরন-পোষণের জন্য নৌকা তৈরির কাজ চালিয়ে চালিয়ে যাচ্ছি।’

boat 2নৌকা তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা।

নৌকা তৈরির অন্য এক কারিগর একই গ্রামের মৃত সনাতন সরকারের ছেলে রাসু সরকার বলেন, ‘আমি ছোটবেলা থেকেই নৌকা তৈরির কাজ করি। বর্ষার মৌসুম তাই এখন ব্যস্ত থাকতে হচ্ছে জেলেদের মাছ ধরার নৌকা বানানোর কাজে। চাহিদা মোতাবেক ছোট, বড় বিভিন্ন রকম নৌকা বানানো হয়। আর নৌকার আকারভেদে দাম নির্ধারণ করা হয়। এ মৌসুমে ৪০-৫০টি নৌকা বানানোর পরিকল্পনা রয়েছে। তবে নৌকা তৈরির মৌসুমে আমাদের একসঙ্গে অনেক টাকার কাঠ কিনতে হয় নৌকা তৈরির জন্য। আর এ টাকা আমরা ঋণ করে এনে নৌকা বিক্রি শেষে লাভের একটা অংশ ওই ঋণদাতাকে দিয়ে দিতে হয়। সরকার যদি এ ব্যাপারে আমাদের সহযোগিতা করত তাহলে আমাদের কষ্ট অনেকটা লাগব হত। 

কোম্পানীগঞ্জ বদিউল আলম ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ নুরুল হক বলেন, ‘বর্ষার শুরুতে এ উপজেলার নিচু গ্রামে নৌকার চাহিদা বেড়ে যায়। ওইসব এলাকায় যাতায়াত ও জেলেরা মাছ ধরার জন্য নতুন নৌকা কিনে থাকেন। ছোটবেলায় আমরা অনেক নৌকা দেখেছি, কিন্তু সেই নৌকার দৃশ্য এখন আর দেখা যায় না। নৌকা তৈরির শিল্পটাকে টিকিয়ে রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের যথাযথ নজরদারি দরকার।’

মুরাদনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ড. আহসানুল আলম সরকার কিশোর বলেন, ‘যারা নৌকা তৈরি করেন তারা খুবই দরিদ্র। এ উপজেলায় যারা দীর্ঘদিন নৌকা তৈরির পেশার সঙ্গে সম্পৃক্ত তাদের ব্যাপারে খোঁজখবর নিবো। সরকারিভাবে উন্নত প্রশিক্ষণ ও ঋণের ব্যবস্থা করার যদি কোন প্রকার সুযোগ থাকে তাহলে অবশ্যই সহযোগিতা করা হবে।’