ব্রেকিং:
১৫ বছরেও হয়নি মনোহরগঞ্জের নিজস্ব পোস্টাল কোড ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ৬ ডাকাত আটক নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের চূড়ান্ত অনুমোদন মেঘনায় জেলেদের হামলায় ১০ নৌ-পুলিশ আহত বিরল দৃষ্টান্ত, পুলিশের হাতে সন্তানকে তুলে দিলেন মা দেশে একদিনে আক্রান্ত এক হাজারের বেশি, মৃত্যু বেড়েছে ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ নীতি বাস্তবায়ন শুরু করেছে সরকার নারীদের একাকিত্বকে টার্গেট করেই চলে কামালের ধর্ষণ আর প্রতারণা ৭ বছরের চাচাতো বোনকে ধর্ষণ করল ১৪ বছরের কিশোর! বিশ্বে একদিনে আক্রান্ত ৪ লাখের বেশি, মৃত্যু ৫৫৯৯ সড়কে গাছ ফেলে পুলিশের গাড়িতে ডাকাতি! স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১ নভেম্বর থেকে সবার মিলছে ওমরার সুযোগ স্ত্রীর সামনেই মুরগির সঙ্গে বিকৃত যৌনতায় মেতে ওঠেন রেহান দেশে এক গাভি বছরে জন্ম দেবে দু্টি বাছুর নারীদের অংশগ্রহণ আরো বাড়ানোর আহ্বান বাংলাদেশের আসলের মোড়কে নকল পণ্যের ছড়াছড়ি, বিপাকে ক্রেতারা ২০৩০ সালের মধ্যে সড়কে মৃত্যু ৫০ শতাংশ কমানো হবে কিশোর ইয়াসিন খুনের প্রধান আসামি গ্রেফতার ঘুরে দাঁড়াচ্ছে স্বল্প আয়ের মানুষ চান্দিনায় অবাধে চলছে ড্রেজার মেশিন
  • রোববার   ২৫ অক্টোবর ২০২০ ||

  • কার্তিক ১০ ১৪২৭

  • || ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

২২৭

মেয়েকে ধর্ষণ করে নিজেকে ‘পীর’ দাবি করলো বাবা

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ৭ অক্টোবর ২০২০  

নাটোরের বড়াইগ্রামে নিজের মেয়েকে ঘরে আটকে রেখে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ধর্ষক বাবা শরিফুল ইসলামের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এর আগে, ২২ সেপ্টেম্বর দুপুরে বড়াইগ্রাম থানায় এ মামলাটি দায়ের করেন ধর্ষিত ওই মেয়ের মা রেখা বেগম। অভিযুক্ত শরিফুল ইসলাম বড়াইগ্রাম উপজেলার গোয়ালফা এলাকার বশরত মন্ডলের ছেলে।

বড়াইগ্রাম থানার ওসি দিলিপ কুমার দাস ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,  ওই মেয়েটির মা রেখা বেগম ৮/১০ বছর আগে তার স্বামী শরীফুল ইসলামকে ছেড়ে ওই মেয়েকে নিয়ে নাটোর সদর উপজেলার পুর্ব হাগুরিয়া গ্রামে তার বাবা আনোয়ার হোসেনের বাড়িতে গিয়ে ওঠেন।

পরে দ্বিতীয়বার বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে অন্যত্র সংসার গড়েন রেখা বেগম। আর মেয়ে তার নানা আনোয়ার হোসেনের বাসায় থাকতেন। কোরবানির ঈদের আগে শরিফুল ইসলাম তার মেয়েকে নানার বাড়ি থেকে বড়াইগ্রামে নিজ বাড়িতে নিয়ে যান। সেখানে নিজের ওই মেয়েকে ঘরে আটকে রেখে নিয়মিত ধর্ষণ করতে থাকেন। মেয়েটি এ ঘটনা তার দাদা বশরত আলী ও তার দাদীকে জানালেও কোনো প্রতিকার পায়নি।  

ফলে মেয়েটি আরো বেশি অসহায় হয়ে পড়ে। এই সময়ে যৌন নির্যাতনের পাশাপাশি শারীরিকভাবেও নির্যাতনের শিকার হয় মেয়েটি। বাড়িতে কোনো লোকজন এলে তার সঙ্গে দেখা বা কথা বলতেও দেয়া হতো না। এ অবস্থা থেকে উত্তরণে মেয়েটি তার মাকে ঘটনাটি খুলে বলে। এ ঘটনায় মেয়েটির মা রেখা বেগম তার বাবা শরিফুল ইসলামের বিরুদ্ধে থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। মামলার পর থেকে অভিযুক্তকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান শুরু হয়। 

মঙ্গলবার (৬ অক্টোবর) বাবা শরীফুলকে মানিকগঞ্জের হরিরামপুরের একটি চর থেকে গ্রেফতার করে সিআইডি। 

দুপুরে রাজধানীর মালিবাগে সিআইডির কার্যালয়ে ব্রিফিং করেন সিআইডির ডিআইজি শেখ নাজমুল আলম। তিনি জানান, গ্রেফতারের পর শরীফুল নিজেকে পীর বলে দাবি করেছে।

এদিকে নির্যাতিতা ওই মেয়ে বলেন, তার মা বাবাকে ছেড়ে অন্যত্র বিয়ে করেছেন ১০ বছর আগে। পরে বাবাও দ্বিতীয় বিয়ে করেন। এবার কোরবানির ঈদের সময় ছোট মা বেড়াতে গেলে বাবা আমাকে বাড়িতে নিয়ে যান।  এক রাতে আমাকে বাবা ভয়-ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণ করেন। এরপর বিভিন্ন সময় আরো ৭/৮ বার ধর্ষণ করেন। একবার ধর্ষণের চেষ্টা করলে আমি বাধা দিই। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে অনেক মারধর করে। একই সঙ্গে মেরে ফেলারও হুমকি দেয়। পরে ভয় পেয়ে আমি মাকে সব খুলে বলি। ঘটনা জানার পর মা থানায় অভিযোগ করেন। আমি এই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই।

কুমিল্লার ধ্বনি
সারাবাংলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর