ব্রেকিং:
তিতাসে সিয়াম হত্যারয় দুই জনের স্বীকারোক্তি পুরো দেশকে উচ্চগতির ইন্টারনেটের আওতায় আনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে এইচএসসি পাসে ডিএসসিসিতে চাকরি, আবেদন করুন দ্রুত দ্রুত তওবাকারীদের সম্পর্কে কোরআনে যা বলা হয়েছে বিমানবন্দরে সাফজয়ী নারী ফুটবলারদের লাগেজ ভেঙে ডলার-টাকা চুরি সৌদি আরবে আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতায় হাফেজ তাকরিম তৃতীয় কুমিল্লায় ইয়াবা বিক্রির সময় ভারতীয় নাগরিকসহ ২ জন আটক রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে জাতিসংঘের জোরালো ভূমিকা চান প্রধানমন্ত্রী সাবিনাদের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে ছাদখোলা বাস প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাঙচুর: সোহাগ আলীর ১০ বছরের কারাদণ্ড শেখ হাসিনাকে পাকিস্তান সফরের আমন্ত্রণ শেহবাজ শরিফের সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণ ৪ শর্তে শিথিল জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগ দিতে নিউইয়র্ক পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী কুমিল্লায় চার হাসপাতাল সিলগালা, ৩ লাখ টাকা জরিমানা মিয়ানমারের ব্যাপারে সর্বোচ্চ সংযম দেখাচ্ছে বাংলাদেশ:প্রধানমন্ত্রী সিপিডিতে ভালো পদে চাকরির সুযোগ, শুরুতেই পাবেন ৩৫০০০ ঘুমধুম সীমান্তের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের দুটি বাস দিল পুলিশ লক্ষ্মীপুরে ১৫ জুয়াড়ি আটক লন্ডন পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী যেখানে সন্ধ্যার পরই জেলার সঙ্গে উপজেলার যোগাযোগ বন্ধ
  • রোববার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১০ ১৪২৯

  • || ২৭ সফর ১৪৪৪

যেখানে সন্ধ্যার পরই জেলার সঙ্গে উপজেলার যোগাযোগ বন্ধ

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২২  

বরগুনা একটি নদীবেষ্টিত জেলা। এ জেলার সঙ্গে উপজেলাগুলোর যোগাযোগের জন্য এখন পর্যন্ত নির্মিত হয়নি কোনো সেতু। ফলে সন্ধ্যার পরই জেলা শহরের সঙ্গে উপজেলাগুলোর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকে। আবার বৈরি আবহাওয়ার সময় দিনেও উপজেলা শহরের মানুষ জেলা শহরে যেতে পারে না। 

জানা গেছে, পায়রা, বলেশ্বর ও বিষখালী নদীবেষ্টিত জেলা বরগুনা। এ জেলার ছয় উপজেলার মধ্যে বেতাগী উপজেলা ছাড়া অন্য উপজেলার সঙ্গে জেলা শহরের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে নদীগুলো। এর মধ্যে দুই উপজেলায় যোগাযোগের জন্য রয়েছে ফেরি সার্ভিস। তবে ফেরি চলাচলে দেরি হওয়ায় বিকল্প হিসেবে ইঞ্জিনচালিত নৌকায় ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হতে হয়।

এদিকে রাত ৮টার মধ্যে ফেরি ও ইঞ্জিনচালিত নৌকা বন্ধ হয়ে যায়। ফলে জনগণের ভোগান্তি ১২ মাসই থাকে। আবহাওয়া খারাপ থাকলে দিনেও ইঞ্জিনচালিত নৌকা চলাচল বন্ধ থাকে। ফলে রোগী নিয়ে বা খুব প্রয়োজন থাকা সত্ত্বেও উপজেলা শহর থেকে জেলা শহরে প্রবেশ করতে পারছেন না কেউ।

Dhaka post

বাইনচটকি-বড়ইতলা রুটের টুকু মিয়া, নয়ন, খলিলসহ কয়েকজন যাত্রী বলেন, ফেরির কোনো ঠিক-ঠিকানা নেই। তাছাড়া ফেরি পারাপারে সময় লাগে অনেক। তাই ট্রলারই ভরসা। দফায় দফায় ভাড়া বাড়ানোর পরও বাধ্য হয়ে ট্রলারেই পারাপার হতে হচ্ছে। এখানে একটা ব্রিজ হলে আমাদের কষ্ট কম হতো।

এনায়েত হোসেন নামে আমতলী-পুরাকাটা রুটের এক যাত্রী বলেন, আমার বাসা বরগুনায়। আমতলীর একটা স্কুলে শিক্ষকতা করি। তাই রোজ এই পথে যাওয়া-আসা করতে হয়। বৈরি আবহাওয়ার মধ্যেও ঝুঁকি নিয়ে হাজার হাজার মানুষ ট্রলারে পারাপার করছে। এদের কোনো নিরাপত্তা নেই। পায়রা নদীর এই স্থানে একটা ব্রিজ এখন সময়ের দাবি।

Dhaka post

চালিতাতলী-বগী রুটের কয়েকজন যাত্রী বলেন, আমতলী, পাথরঘাটার মানুষ ফেরিতে চাইলেও যেতে পারে। কিন্তু আমাদের একমাত্র ভরসা হলো ইঞ্জিনচালিত ট্রলার। নদী মোহনা হওয়ায় এই রুটে সব সময়ই নদী উত্তাল থাকে, তবুও ঝুঁকি নিয়ে পারাপার করতে হয়। সন্ধ্যার পর তো ট্রলারও পাওয়া যায় না। এখানে ব্রিজ হলে আমরা সাধারণ মানুষ উপকৃত হবো, পাশাপাশি দক্ষিণাঞ্চলের সম্ভাবনার দুয়ার খুলবে।

বরগুনার জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান বলেন, পায়রা এবং বিষখালী নদীতে ব্রিজ নির্মাণ করা জরুরি। আমরা বিষখালী নদীর বড়ইতলা-বাইনচটকি এবং পায়রা নদীর আমতলী-পুরাকাটা রুটে ব্রিজ নির্মাণের জন্য সেতু মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে চিঠি দিয়েছি। আশা করছি শিগগিরই তারা এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।