ব্রেকিং:
বিয়ের দিন বাড়িতে হাজির প্রথম স্ত্রী হাসপাতালে ভর্তি ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী ৫০ থেকে একশ শয্যায় উন্নীত হবে সব হাসপাতাল সেপটিক ট্যাংকে নেমে প্রাণ গেল ২ রাজমিস্ত্রির মজুতদারি করে কারসাজি করলে কঠোর ব্যবস্থা ইঞ্জিনে ওভার হিট, মহাখালীতে প্রাইভেটকারে আগুন ১৫ লাখ টাকার মালামাল লুট ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট ফিরে পেলেন ট্রাম্প অবশেষে ঝুঁকিপূর্ণ তিন রাস্তার সংযোগস্থলে গতিরোধক স্থাপন বাঙালি বিশ্ব মোড়লদের ধার ধারে না: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী যেসব কারণে ব্যাপক চাপ থাকবে সড়কে সুপ্রিম কোর্টের আদেশে সরকারের কোটা সংক্রান্ত পরিপত্র বলবৎ হয়েছে পানি নিষ্কাশনে ডিএনসিসির ৫ হাজার পরিচ্ছন্নতা কর্মী কাজ করছে সময় টিভির সাংবাদিকদের উপর কোটা বিরোধীদের হামলা প্রধানমন্ত্রীর অন্তর্ভুক্তিমূলক সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি গাজায় ‘যুদ্ধাবসানের সময় এসেছে’: বাইডেন ন্যাটো-রাশিয়াকে সংঘাতের ব্যাপারে সতর্ক করলেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রাজধানীসহ সারাদেশে ভারী বৃষ্টি রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরুতে ইতিবাচক মিয়ানমার চীনা গণমাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর চীন সফর
  • রোববার ১৪ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৩০ ১৪৩১

  • || ০৬ মুহররম ১৪৪৬

রেমিট্যান্স পাঠাতে খরচ বেশি বাংলাদেশে

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ৯ জুলাই ২০২৪  

ডলার সংকটের এ সময়ে দেশে প্রবাসীদের রেমিট্যান্স পাঠানো বেড়েছে। ২০২৩ সালে দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ২২.১৬৮ বিলিয়ন ডলার, যা দেশের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। গত বছর দেশে রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়েছে ৩ শতাংশের বেশি। তবে রেমিট্যান্স পাঠাতে প্রবাসীদের খরচ বেড়েছে।

তথ্য বলছে, দক্ষিণ এশিয়ার পাঁচটি ব্যয়বহুল রেমিট্যান্স করিডরের মধ্যে তিনটিই বাংলাদেশের। অথচ বৈধ চ্যানেলে রেমিট্যান্স বাড়াতে ব্যয় কমিয়ে আনার বিকল্প নেই।

বিশ্বব্যাপী অভিবাসন নিয়ে কাজ করা ‘দ্য গ্লোবাল নলেজ পার্টনারশিপ অন মাইগ্রেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট’ তথা নোমাড- এর সাম্প্রতিক প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

ঐ প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২৩ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে বিশ্বের সব অঞ্চলের চেয়ে কম খরচে রেমিট্যান্স এসেছে দক্ষিণ এশিয়ায়।

কিন্তু ২০২২ সালের চতুর্থ প্রান্তিকের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায়, এ অঞ্চলে রেমিট্যান্স পাঠানোয় খরচ বেড়েছে। এ অঞ্চলের সবচেয়ে ব্যয়বহুল পাঁচটি করিডরেই খরচ বেড়ে হয়েছে ১১.৭ থেকে ১৩.৬ শতাংশ পর্যন্ত।

সবচেয়ে বেশি খরচ বেড়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে বাংলাদেশে রেমিট্যান্স পাঠানোয়। একই সময়ে সিঙ্গাপুর-বাংলাদেশ করিডরে খরচ বেড়েছে ৪৬ শতাংশ।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, প্রতিবেশী দেশের চেয়ে বাংলাদেশে রেমিট্যান্স পাঠাতে খরচ বেশি। ২০২৩ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে মালয়েশিয়া থেকে ইন্ডিয়ায় রেমিট্যান্স পাঠাতে যেখানে খরচ পড়েছে ২.২ শতাংশ, সেখানে মালয়েশিয়া থেকে বাংলাদেশে রেমিট্যান্স পাঠানোয় খরচ পড়েছে ১২.১ শতাংশ।

সিঙ্গাপুর থেকে ভারতে রেমিট্যান্স পাঠানোয় খরচ পড়েছে ২.৬ শতাংশ, অথচ সিঙ্গাপুর থেকে বাংলাদেশে রেমিট্যান্স পাঠানোর খরচ পড়েছে ১১.৭ শতাংশ।

এই সময়ে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে শ্রীলংকায় রেমিট্যান্স পাঠানোয় খরচ পড়েছে ২.৫ শতাংশ, এর বিপরীতে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে বাংলাদেশে রেমিট্যান্স পাঠাতে খরচ পড়ে ১৩.৬ শতাংশ।

দক্ষিণ এশিয়ায় রেমিট্যান্স পাঠাতে সবচেয়ে কম খরচের পাঁচটি করিডরের কোনোটিতে নেই বাংলাদেশ। অথচ এ অঞ্চলের সবচেয়ে ব্যয়বহুল পাঁচটি করিডরের তিনটিই বাংলাদেশের।

যদিও ডিজিটাল মাধ্যমে খরচ অনেকটা কমেছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, প্রযুক্তিগত উন্নয়ন রেমিট্যান্স পাঠাতে খরচ কমিয়ে দিচ্ছে।