ব্রেকিং:
বিয়ের দিন বাড়িতে হাজির প্রথম স্ত্রী হাসপাতালে ভর্তি ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী ৫০ থেকে একশ শয্যায় উন্নীত হবে সব হাসপাতাল সেপটিক ট্যাংকে নেমে প্রাণ গেল ২ রাজমিস্ত্রির মজুতদারি করে কারসাজি করলে কঠোর ব্যবস্থা ইঞ্জিনে ওভার হিট, মহাখালীতে প্রাইভেটকারে আগুন ১৫ লাখ টাকার মালামাল লুট ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট ফিরে পেলেন ট্রাম্প অবশেষে ঝুঁকিপূর্ণ তিন রাস্তার সংযোগস্থলে গতিরোধক স্থাপন বাঙালি বিশ্ব মোড়লদের ধার ধারে না: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী যেসব কারণে ব্যাপক চাপ থাকবে সড়কে সুপ্রিম কোর্টের আদেশে সরকারের কোটা সংক্রান্ত পরিপত্র বলবৎ হয়েছে পানি নিষ্কাশনে ডিএনসিসির ৫ হাজার পরিচ্ছন্নতা কর্মী কাজ করছে সময় টিভির সাংবাদিকদের উপর কোটা বিরোধীদের হামলা প্রধানমন্ত্রীর অন্তর্ভুক্তিমূলক সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি গাজায় ‘যুদ্ধাবসানের সময় এসেছে’: বাইডেন ন্যাটো-রাশিয়াকে সংঘাতের ব্যাপারে সতর্ক করলেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রাজধানীসহ সারাদেশে ভারী বৃষ্টি রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরুতে ইতিবাচক মিয়ানমার চীনা গণমাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর চীন সফর
  • রোববার ১৪ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৩০ ১৪৩১

  • || ০৬ মুহররম ১৪৪৬

সংসারের খরচ চাওয়ায় মাকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ২০ জুন ২০২৪  

কুমিল্লায় ছেলের বিরুদ্ধে মাকে খুনের অভিযোগ উঠেছে। কুমিল্লার তিতাস উপজেলার সাতানি ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর এলাকায় এঘটনা ঘটে। তিতাস থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কৃষ্ণ কান্তি দাস। 

গতকাল বুধবার (১৯ জুন) বিকেল পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেছে। নিহত মঞ্জুরা বেগম (৬৫) কৃষ্ণপুর গ্রামের শান্তি মিয়ার স্ত্রী। পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার ছেলে নবীর হোসেনের বিরুদ্ধে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শান্তি মিয়ার দুই ছেলে তিন মেয়ে। ছোট ছেলে প্রবাসী বাবুল মিয়া বাহরাইনে থাকেন। বড় ছেলে নবীর হোসেন একটি কোম্পানিতে চাকরি করেন। স্বামী শান্তি মিয়া বাড়িতে বেকার। বড় ছেলে খুব একটা সংসার খরচ দেন না। এ নিয়ে প্রায়ই বাবা-মা’র সঙ্গে নবীন হোসেনের ঝগড়া হতো।

মঙ্গলবার রাতে সংসারের খরচ চাওয়ায় নবীর হোসেন তার মাকে গালমন্দ করে। একপর্যায়ে চেয়ার দিয়ে মাকে মারধর করতে শুরু করেন নবীর। বাবা শান্তি মিয়া বাধা দিলে তাকেও ধাক্কা দেন। মা মাটিতে লুটে পড়লে স্থানীয়রা উদ্ধার করে তিতাস উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

সাতানী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মো. শামসুল হক সরকার বলেন, ছেলে ঝগড়ার একপর্যায়ে তার মাকে লাথি দেয় এবং আঘাত করে। এতে তিনি মারা যান। ওই ঘটনায় ছেলে পুলিশের হেফাজতে রয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে বলে জানতে পেরেছি। 

এই বিষয়ে কুমিল্লা তিতাস থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কৃষ্ণ কান্তি দাস বলেন, পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে প্রেরণ করেছে। নিহতের শরীরে তেমন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসলে মূল কারণ জানা যাবে।