ব্রেকিং:
যেকোনো হুমকি মোকাবিলায় প্রস্তুত থাকার নির্দেশ সেনাপ্রধানের ৩ শিশুকে যৌন নিপীড়ন আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে শিশু মৃত্যুর ঘটনা খাল ভরাট করে সড়ক চায় না কুসিক, মানছে না সওজ চাঁদপুর পালবাজার থেকে ‘প্লাস্টিকের চাল’ উদ্ধার নিয়ে ধুম্রজাল করোনায় কুমিল্লা দেবিদ্বার উপজেলা চেয়ারম্যানের মৃত্যু ভরাট হয়ে যাচ্ছে ৩০০ বছরের জংলিবিবি পুকুর কমিটি বিহীন চলছে আখাউড়া পৌর যুবদলের কার্যক্রম দেশে একদিনে কমেছে মৃত্যু, আক্রান্ত বেড়েছে ঘোষণা করা হয়েছে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৯ ৬৬ বছরে বাংলা একাডেমি বিজয়ের মাসেই পদ্মা জয়ের স্বপ্নপূরণ বাংলাদেশের ‘শান্তির সংস্কৃতি’রেজুলেশন জাতিসংঘে গৃহীত নকল টিকা নিয়ে ইন্টারপোলের সতর্কতা, বিশ্বব্যাপী শঙ্কা ২০২৫ সালের মধ্যে শিশুশ্রম মুক্ত হবে দেশ তৈরি হচ্ছে ৩ লাখ ৭০ হাজার স্লিপার রেমিট্যান্সের প্রণোদনায় শর্ত শিথিল আগামী ডিসেম্বরে রামপালের বিদ্যুৎ করোনা বিপর্যয়ের মধ্যেও দেশে জাপানি বিনিয়োগ পাওনাদী পেতে শুরু করেছে বাংলাদেশ জুট মিলের শ্রমিকরা
  • শুক্রবার   ০৪ ডিসেম্বর ২০২০ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২০ ১৪২৭

  • || ১৭ রবিউস সানি ১৪৪২

৮১

সড়ক নয়, যেন খাল!

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ৯ আগস্ট ২০২০  

কুমিল্লার তিতাস উপজেলার ভিটিকান্দি ইউপির ৭ নম্বর ওয়ার্ডের  দড়িকান্দি ভেড়ি বাঁধ থেকে কালিপুর পর্যন্ত  সড়কটি প্রায় ৩ ফুট পানির নিচে তলিয়ে গেছে।এলাকায় নতুন কেউ আসলে এটিকে রাস্তা নয় বরং খাল ভেবে ভুল করবেন। 

অপরিকল্পিতভাবে সড়কটি নির্মাণ করায় এই হাল হয়েছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

বর্ষার আসার সঙ্গে সঙ্গেই দড়িকান্দি বেড়ি বাঁধ থেকে ব্রিজ পর্যন্ত পুরো ১ কিলোমিটার সড়কটি পানিতে তলিয়ে যায়। বন্ধ হয়ে গেছে সড়ক যোগাযোগ। এতে সময় ও অর্থের অপচয় ছাড়াও রাস্তার বিভিন্ন স্থানে খানা-খন্দের কারণে চরম দুর্ভোগে পড়েছে এলাকাবাসী। 

সরেজমিনে দেখা যায়, পানির লেভেল থেকে প্রায় ২/৩ ফুট নীচে তলিয়ে যাওয়া নির্মাণাধিন রাস্তায় কোথাও কোমড় পানি আবার কোথাও হাটু পানি। আর এ কারণে  দড়িকান্দি, ছালিয়াকান্দি, কালিপুর, শ্যাম্বুপুর, গাজিপুর, হাইদরকান্দি, রোগনাথপুর গ্রামের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। ফলে ১০/১২ হাজার লোকের বাড়তি ভাড়ায় চলতে হচ্ছে নৌকা যোগে অথবা বিকল্প রাস্তা দিয়ে।

ইউপির জাতীয় পার্টির নেতা ও দড়িকান্দি গ্রামের বাসিন্দা মো. রফিকুল ইসলাম জানান, সড়কটি প্রশস্তের জন্য ঠিকাদার ইয়াছিন অন্য জায়গা থেকে মাটি না এনে সড়কটি কেটে প্রশস্ত করায় প্রায় ৩ ফুট দেবে যায়।  ফলে অল্প বৃষ্টিতে সড়কটির এই হাল হয়েছে।  

ঠিকাদার ইয়াছিনের এ কাজে এলাকাবাসীর সমর্থন না থাকলেও তিনি কারো কথায় কর্ণপাত করেননি। এছাড়া রাস্তায় ব্যবহার করা হয়েছে নিম্ন মানের সামগ্রী।

ব্যাবসায়ী ও শিক্ষক আদিলুজ্জামান জানান, প্রতিদিন চারবার করে এই পথ দিয়েই চলাচল করতে হয়। হাঁটু পানিতে নিয়মিত চলাচল করায় পায়ে ঘাঁ হয়ে গেছে। এছাড়া গর্তে পড়ে মানুষ প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। তবে সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগে পড়েছে স্কুলের শিক্ষার্থী ও নারীরা।

মেসার্স লোকমান হোসেন ফার্মের ঠিকাদার ইয়াছিন বলেন, আমি রাস্তার বালু সড়াইনি, রাস্তাও নীচু করিনি। রাস্তার দুই পাশে পানি থাকায় ইট, সুড়কি সরে গেছে।  বর্ষাকালে কাজ করা সম্ভব না। সড়কটি আবারো নির্মাণ করা হবে। 

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী মুহিব উল্লাহ বলেন, এ বিষয়টি শোনার সঙ্গে সঙ্গেই পরিদর্শনে যাই এবং কাজ বন্ধ রাখি। আশা করছি আগামী শুকনো মৌসুমে রাস্তাটির উন্নয়নকাজ শুরু করা যাবে।

কুমিল্লার ধ্বনি
কুমিল্লা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর