ব্রেকিং:
বিয়ের দিন বাড়িতে হাজির প্রথম স্ত্রী হাসপাতালে ভর্তি ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী ৫০ থেকে একশ শয্যায় উন্নীত হবে সব হাসপাতাল সেপটিক ট্যাংকে নেমে প্রাণ গেল ২ রাজমিস্ত্রির মজুতদারি করে কারসাজি করলে কঠোর ব্যবস্থা ইঞ্জিনে ওভার হিট, মহাখালীতে প্রাইভেটকারে আগুন ১৫ লাখ টাকার মালামাল লুট ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট ফিরে পেলেন ট্রাম্প অবশেষে ঝুঁকিপূর্ণ তিন রাস্তার সংযোগস্থলে গতিরোধক স্থাপন বাঙালি বিশ্ব মোড়লদের ধার ধারে না: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী যেসব কারণে ব্যাপক চাপ থাকবে সড়কে সুপ্রিম কোর্টের আদেশে সরকারের কোটা সংক্রান্ত পরিপত্র বলবৎ হয়েছে পানি নিষ্কাশনে ডিএনসিসির ৫ হাজার পরিচ্ছন্নতা কর্মী কাজ করছে সময় টিভির সাংবাদিকদের উপর কোটা বিরোধীদের হামলা প্রধানমন্ত্রীর অন্তর্ভুক্তিমূলক সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি গাজায় ‘যুদ্ধাবসানের সময় এসেছে’: বাইডেন ন্যাটো-রাশিয়াকে সংঘাতের ব্যাপারে সতর্ক করলেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রাজধানীসহ সারাদেশে ভারী বৃষ্টি রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরুতে ইতিবাচক মিয়ানমার চীনা গণমাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর চীন সফর
  • রোববার ১৪ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৩০ ১৪৩১

  • || ০৬ মুহররম ১৪৪৬

স্কুলছাত্রীর ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে ভয় দেখিয়ে ফের ধর্ষণ

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ২ জুলাই ২০২৪  

কুমিল্লার দেবিদ্বারে এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের মামলায় মোস্তফা নামের এক যুবককে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।  সোমবার (১ জুলাই) দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাকে জেল হাজতে পাঠানো হয়। এর আগে রবিবার রাতে ফতেহাবাদ ইউনিয়নের জয়পুর গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে মোস্তফাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর বাবা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন বলে জানান অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. নয়ন মিয়া। অভিযুক্ত মোস্তফা (৩৫) জয়পুর গ্রামের মৃত আবদুল আওয়ালের মিয়ার ছেলে এবং মোস্তফা বিকাশ ও মোবাইল ফ্লেক্সিলোড দোকানি।
মামলার এজহার ও থানা সূত্রে জানা গেছে, ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী মোস্তফার মোবাইল ফ্লেক্সিলোড দোকানে প্রায়ই আসা-যাওয়া করত। আসা-যাওয়ার এক পর্যায়ে দুইজনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। পরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওই ছাত্রীকে একটি ভবনে নিয়ে ধর্ষণ করে মোস্তফা। ধর্ষণের সময় মোবাইলে একটি ভিডিও ধারণ করে রাখে মোস্তফা। পরবর্তীতে মোবাইলে ধারণ করা ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার ভয়ভীতি দেখিয়ে প্রায়ই ওই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করত। পরে এ ঘটনা ওই ছাত্রী তার বাবা মাকে জানালে তার বাবা দেবিদ্বার থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।   
জয়পুর গ্রামের একাধিক স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, গ্রামে মোস্তফার বিকাশ ও মোবাইল ফ্লেক্সিলোড দোকান থাকায় বিভিন্ন নম্বর সংগ্রহ করে ৫/৬ জন মেয়েকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে ধর্ষণ করেছে। লোক লজ্জায় ভয়ে কেউ মুখ খোলেনি। এ বিষয়ে এলাকায় একাধিক সালিশ মিমাংসা হয়েছে। সর্বশেষ সনাতন ধর্মের এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করে ভিডিও ধারণ করে এবং ওই ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে গত সাত আট মাস ধরে তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করেছে।  
ভুক্তভোগীর ওই ছাত্রীর বাবা বলেন, স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে মোস্তফা আমার মেয়েকে প্রায়ই উত্ত্যক্ত করত। আমার  মেয়ে প্রেমের প্রস্তাবে রাজী না হলে জোরপূর্বক অপহরণ করে একটি ভবনে নিয়ে ধর্ষণ করে। আমি এ ঘটনায় বাদি হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছি।  
দেবিদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. নয়ন মিয়া বলেন, ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীর বাবার লিখিত অভিযোগের পর পর অভিযুক্ত মোস্তফাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়। মোস্তফাকে আসামী করে থানায় একটি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়। ওই মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে সোমবার দুপুরে কুমিল্লা জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। ওই ছাত্রীর মেডিকেল পরীক্ষার প্রস্তুতি চলছে।