ব্রেকিং:
মাস্কের টুইটে উত্তাল ভারতের রাজনীতি চার মাসে বিদেশে চাকরি কমেছে ২০ শতাংশ রাজধানীর বড় বড় হাসপাতাল যেন ‘বাতির নিচে অন্ধকার’ ঈদের দিন যেসব উন্নত খাবার পেলেন কারাবন্দিরা আসুন ত্যাগের মহিমায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি হাসিল নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল বাজারে লঙ্কাকাণ্ড টিনের বেড়ায় বিদ্যুতের তার চাঁদপুরে অর্ধশত গ্রামে ঈদ উদযাপন স্বস্তিতে ঘরমুখো মানুষ যেভাবে গড়ে ওঠে শতবর্ষী কুমিল্লা কেন্দ্রীয় ঈদগাহ বেশি ভাড়া রাখায় উপকূল পরিবহনকে জরিমানা মিয়ানমার সীমান্তের পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত থাকার নির্দেশ রাখাইনে বড় সংঘাতের আশঙ্কা, বাসিন্দাদের সরে যাওয়ার নির্দেশ একদিনে পদ্মাসেতুর আয় পৌনে ৫ কোটি টাকা চামড়া সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে র‌্যাবের কঠোর হুঁশিয়ারি ঈদে ট্রেনে মানুষের নির্বিঘ্নে বাড়ি যাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজনে সকল রাজনৈতিক দলকে আমন্ত্রণ খাদ্যসামগ্রী ও দেড় শতাধিক মানুষ নিয়ে জাহাজ গেল সেন্ট মার্টিন কুমিল্লায় বেতন-বোনাসের দাবিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ আফজাল খান পত্নী বীর মুক্তিযোদ্ধা নার্গিস আফজালের ইন্তেকাল
  • মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৪ ১৪৩১

  • || ১০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

স্ত্রীকে হত্যার পর লাশের পাশেই বসেছিলেন স্বামী

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ৬ অক্টোবর ২০২৩  

কুমিল্লার তিতাসে পারিবারিক কলহের জেরে স্বামীর পাইপরেন্সের আঘাতে প্রাণ গেলো গৃহবধূর। স্ত্রীকে নির্মমভাবে হত্যার পর লাশের পাশেই বসে ছিলো পাষণ্ড স্বামী। 

বৃহস্পতিবার ভোর ৬টার দিকে উপজেলার মজিদপুর ইউনিয়নের লালপুর গ্রামের সরকার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আঁখি আক্তার (২১)ওই গ্রামের হাবিবুর রহমান হবি সরকারের মেয়ে। 

স্বামী সাইফুল ইসলাম মিন্টু একই গ্রামের সরকার বাড়ির আব্দুল হাকিমের ছেলে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করে এবং অভিযুক্ত স্বামী মিন্টুকে আটক করে।

জানা যায়, প্রায় সময় স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কলহ-বিবাধ চলে আসছিলো। এর আগেও ভিকটিমকে পিটিয়ে মুখের নিচের পাটির কয়েকটি দাঁত ফেলে দেয় ঘাতক স্বামী। সর্বশেষ গত ১৫ দিন আগেও এ নিয়ে সামাজিকভাবে মীমাংসা করে সংসার করার জন্য মিলিয়ে দিয়ে যায় এবং মিন্টুর কোনো রকম কর্মসংস্থান সৃষ্টি হলে ১ লাখ টাকা দেয়া হবে। এই টাকা নিয়েই বৃহস্পতিবার ভোরে বাক বিতণ্ডা থেকে লোহার পাইপরেন্স দিয়ে মাথায়, গালে, কানে চোখের ওপরে আঘাত করে হত্যা নিশ্চিত করে লাশের পাশেই বসে থাকে স্বামী।

এই দম্পতির তিন বছরের আবরার নামে ১৯ মাসের একটি শিশু পুত্র সন্তান রয়েছে। মায়ের মৃত্যু ও বাবা জেল হাজতে যাওয়ায় নিষ্পাপ শিশুটির ভবিষ্যত নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে বলে মন্তব্য এলাকাবাসীর।

তিতাস থানার ওসি কমল কান্তি দাস বলেন, হত্যাটি পারিবারিক কলহের জেরে হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে। নিহতের স্বামী পালানোর চেষ্টা করলে স্থানীয়দের সহায়তায় তাকে আটক করে কোর্টে প্রেরণ করা হয়ে। নিহতের বড় ভাই শাকিবুল হাসান বাদী হয়ে এজাহার দিয়েছেন।