ব্রেকিং:
‘মুজিব শতবর্ষ’ উপলক্ষে বির্তক প্রতিযোগিতা ও হুইল চেয়ার বিতরণ আকরাম খান সহযোগিতা করবেন কুমিল্লার ক্রিকেটকে ‘আয়নামতি-ময়নামতি’ নামে নয়; কুমিল্লা বিভাগ চাই ‘কুমিল্লা’ নামে সিটি ক্লাবে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ মাদকদ্রব্য উদ্ধার গাভির দুধ মাপার কথা বলে গৃহবধূকে গোয়াল ঘরে ধর্ষণ শ্রমজীবীদের মাঝে বিনামূল্যে রিকশা-ভ্যান বিতরণ সুদের টাকা না পেয়ে কৃষকের ঘরে তালা! এপেক্স ক্লাব অব কুমিল্লার শিক্ষা উপকরণ বিতরণ ৭০ বছরের বুড়ির ঘাড়ে ছেলে, নাতি-নাতনির ভার বৌভাতের মাংস আনতে গিয়ে চিরবিদায় নতুন বরের জনবল সংকটে এক যুগে বন্ধ কুমিল্লার ১৩ রেলস্টেশন! ৩৬০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ: বাংলাদেশ ব্যাংকের কথা শুনবে আপিল বিভাগ মেডিকেল শিক্ষার্থী এখন ৫০ টাকার দিনমজুর! মন থেকে চাইলেই চার্জ হবে ফোন! পুঁজিবাজার সংস্কারে এডিবি’র আরো ১৭০ মিলিয়ন ডলার ঋণ ইসলামের দৃষ্টিতে রোগীর প্রতি চিকিৎসকের দায়িত্ব জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্ট দলে মুশফিক নেই মাহমুদুল্লাহ ভারতের অস্কারখ্যাত ফিল্মফেয়ার পেলেন যারা কৃষককে ফাঁসাতে পুলিশের ইয়াবা ফাঁদ ‘বিএনপি চাইলে প্যারোলে মুক্তির জন্য আবেদন করতে পারে’
  • সোমবার   ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ||

  • ফাল্গুন ৪ ১৪২৬

  • || ২২ জমাদিউস সানি ১৪৪১

৬৩

হুজুর সেজে ধর্ষককে ধরলেন পুলিশ কর্মকর্তা

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ১৮ আগস্ট ২০১৯  

হুজুর সেজে ধর্ষণ মামলার আসামি রেজওয়ান মিয়াকে গ্রেফতার করা হয়েছে পুলিশ। শনিবার বিকেলে সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নের বালিপাড়া গ্রামে অভিনব কৌশলে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

রেজওয়ান জৈন্তাপুরের দরবস্ত ইউনিয়নের শুকইনপুর গ্রামের আহমদ আলীর ছেলে।

জানা গেছে, রেজওয়ান নিজের ভাতিজিকে অপহরণ করে নিয়ে দূরবর্তী গ্রামের এক সিএনজি অটোরিকশাচালকের বাড়িতে আটকে রেখে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। এ ঘটনায় ধর্ষিতার পিতা সামাজিকভাবে বিচার চেয়েও ন্যায়বিচার পাননি।

অপরদিকে, ধর্ষণের ঘটনাটিকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে এবং ধর্ষণের আলামত নষ্ট করতে বিচারের নামে স্থানীয় ইউপি সদস্য সময়ক্ষেপণ করতে থাকেন।

ন্যায়বিচার না পেয়ে অবশেষে ভিকটিম বাদী হয়ে ঘটনার ২ মাস পর গত ১৭ জুলাই জৈন্তাপুর মডেল থানায় ধর্ষক রেজওয়ানকে প্রধান আসামি করে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। 

পুলিশ সরেজমিন তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পায় এবং ধর্ষক রেজওয়ান ইতোপূর্বে এ ধরনের একাধিক অপকর্ম করে কারাভোগ করেছে বলে তথ্য বেরিয়ে আসে। কারাভোগ করে বের হওয়ার কিছুদিনের মধ্যে সে ভাতিজিকে অপহরণ করে আটকে রেখে ধর্ষণের ঘটনা ঘটায়।

পুলিশ গত ১৮ জুলাই ভিকটিমের লিখিত অভিযোগটিকে মামলা হিসেবে গণ্য করে যার নম্বর- ৮/১০৪। মামলার প্রকৃত রহস্য অনুসন্ধান ও ধর্ষক রেজওয়ানকে আটকের জন্য পুলিশের একাধিক টিম উপজেলা বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে চতুর ধর্ষক পালিয়ে যায়।

এদিকে, পুলিশ ঘটনার প্রকৃত রহস্য অনুসন্ধান করতে মামলাটি চ্যালেঞ্জ হিসেবে গ্রহণ করে এবং ধর্ষককে আটক করতে মরিয়া হয়ে উঠে পুলিশ। অবশেষে পুলিশ আসামিকে গ্রেফতার করতে ছন্দবেশ ধারণ করে বিভিন্ন স্থানে ঘোরাঘুরি করতে থাকে।

এক পর্যায়ে জৈন্তাপুর মডেল থানার এসআই আজিজুর রহমান হাজীর বেশ ধারণ করে শনিবার বেলা ৩টায় উপজেলার ফতেপুর (হরিপুর) ইউনিয়নের বালিপাড়া এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ধর্ষক রেজওয়ান মিয়াকে আটক করেন।

জৈন্তাপুর মডেল থানার ওসি শ্যামল বণিক ধর্ষককে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ধর্ষক রেজওয়ান ইতোপূর্বে এ ধরনের অপরাধ করে কারাবরণ করেছে। কারাবরণ করে বের হয়েই সে আবার এই ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটায়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে।

আসামিকে রোববার আদালতে নিয়ে রিমান্ড চাওয়া হবে বলেও জানান ওসি শ্যামল বণিক।

কুমিল্লার ধ্বনি
কুমিল্লার ধ্বনি
সারাবাংলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর