ব্রেকিং:
চামড়াশিল্প রক্ষায় আসছে একগুচ্ছ প্রণোদনা সবাই মাস্ক পরলে ৯০ ভাগ করোনা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব জমির রেজিস্ট্রেশন ফি কমল ত্রাণ পেয়েছে ৭ কোটি ৩৫ লাখ মানুষ কোভিড-১৯ চিকিৎসা শুরু করছে বিএসএমএমইউ দেশে একদিনে আরো ২৯ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩২৮৮ প্রতিবন্ধকতা না এলে ডিসেম্বরেই মিলবে দেশের করোনা ভ্যাকসিন চলতি মাসেই জুনের বেতন পাবেন রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিকরা অন্য দেশের চেয়ে বাংলাদেশে করোনা পরিস্থিতি ভালো করোনাকালে অর্থনীতির চাকা সচল রাখছে আইসিটি খাত পাটকল নিয়ে সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত, লক্ষ্য আধুনিকায়ন প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ডেল্টা কাউন্সিল গঠন যুক্তরাজ্যে বর্ষসেরা চিকিৎসক হলেন বাংলাদেশের ফারজানা হোসেইন করোনাকে আলিঙ্গন করেই চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন তারা ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জিলাপি বিতরণ নিয়ে খুন! কুমেক হাসপাতালে আটজনের মৃত্যু, ভর্তি ১১৫ চাঁদপুরে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা হাজার ছাড়াল ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আরো ২৭ জনের করোনা পজিটিভ কুমিল্লায় নতুন করে আক্রান্ত ৭৯ দেশে একদিনে আরো ৪২ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩১১৪
  • শনিবার   ০৪ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২১ ১৪২৭

  • || ১৩ জ্বিলকদ ১৪৪১

২২৫৭

৯৯৯-এ ফোন, বাঁচল ১৯ প্রাণ

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ২৯ মে ২০১৯  

বগুড়ার জাহাঙ্গীরাবাদ ক্যান্টনমেন্টে সোমবার রাতের ঝড়ে নির্মাণাধীন ভবনের ২৬ শ্রমিক চাপা পড়েন। এতে কিছু শ্রমিক কোনোভাবে বের হতে পারলেও আটকা পড়েন ১৯ জন।

তবে এই ভয়াবহতার মধ্যেও সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন তারা। মাথা ঠাণ্ডা রেখে একজন শ্রমিক কল দেন জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯-এ। মুহূর্তেই ঘটনাস্থলে ছুটে আসে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও অ্যাম্বুলেন্স। দ্রুত সেখান থেকে ১৯ শ্রমিককে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে নেয়া হয়। 

এর মধ্যে সবাই শঙ্কামুক্ত থাকলেও পাঁচজনের অবস্থা গুরুতর। তবে ৯৯৯-এ কলই ওই শ্রমিকদের আরও বড় বিপদের হাত থেকে বাঁচিয়ে দিলো বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

ইউএনও ফুয়ারা খাতুন বলেন, সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে তুমুল ঝড়-বৃষ্টির আঘাতে এটি ভেঙে পড়ে। এতে আহত হন ২৬ জন শ্রমিক। আহতদের উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারা সবাই যেন প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা পান সেটা নিশ্চিত করা হয়েছে।

আহতদের মধ্যে গোলাম রব্বানী, রোমান, শাহিন, জয়নাল, নবীর, আলমগীর, সাফিনূর, শাহ্ আলম, বাবু, মামুন, সাদেশ, রাকিব, রাকিবুল, শিপন, আতিকুল, আল আমিন, রাজ্জাক ও সাজুর পরিচয় জানা গেছে। এদের বেশিরভাগই গাইবান্ধার বাসিন্দা। আহতদের মধ্যে কারো পা-ও ভেঙে গেছে। আবার কেউ মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়েছেন।

জেলার অতিরিক্ত এসপি (মিডিয়া) সনাতন চক্রবর্তী বলেন, ৯৯৯-এ কল পেয়েই ঘটনাস্থলে তারা সবাই দ্রুত ছুটে যান। আহত সব শ্রমিককে উদ্ধার করে শজিমেকে নেয়া সম্ভব হয়। ১৯ জন শ্রমিককে তাৎক্ষণিক ভর্তি করা হয়। অনেককেই প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। আহতদের মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা আঘাত মারাত্মক হলেও বাকি সবাই শঙ্কামুক্ত। সময় মতো তাদের হাসপাতালে নিতে না পারলে অনেকের অবস্থা সংকটাপন্ন হতে পারতো।

কুমিল্লার ধ্বনি
সারাবাংলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর