ব্রেকিং:
শুরু হচ্ছে ডিজিটাল মেলার মহাযজ্ঞ প্রধানমন্ত্রীর ঘর পাওয়ার আনন্দে পিঠাপুলির আয়োজন কেবল মায়ের পরিচয়েও স্কুলে পড়তে পারবে সন্তান সর্বজনীন পেনশন বিল পাস স্বাস্থ্য খাতের দুর্নীতি সহনীয় পর্যায়ে না আনলে দেশ টিকবে না আন্তর্জাতিক মানে বিকশিত হচ্ছে এভিয়েশন খাত : বিমান প্রতিমন্ত্রী ট্যাক্সে বেতন, জনগণের সেবা করুন : প্রধানমন্ত্রী দর্শনার্থীদের জন্য সীমিত পরিসরে উন্মুক্ত হচ্ছে বঙ্গভবন মার্চে ঢাবিতে বিশেষ সমাবর্তন ডিগ্রি প্রদান করা হবে বঙ্গবন্ধুকে চাঁদপুর জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির শিক্ষা উপকরণ বিতরণ ডাকাতিয়া নদী অবৈধ দখল উদ্ধারে জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন কচুয়ায় স্কুল শিক্ষার্থীর বিষপানে আত্মহত্যা চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে দুদকের অভিযান আজ চাঁদপুর জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে ৩০জন প্রার্থী পুরাণবাজারের সড়কগুলোর করুণ অবস্থায় ভোগান্তিতে মানুষ পুরাণবাজারের সড়কগুলোর করুণ অবস্থায় ভোগান্তিতে মানুষ কচুয়ায় হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ নির্যাতনের শিকার রোজিনার দেশে ফেরার আকুতি সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় হাজীগঞ্জের রেমিট্যান্স যোদ্ধার মৃত্যু আজ চাঁদপুর জেলা আইনজীবী সমিতি নির্বাচন
  • শুক্রবার   ২৭ জানুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৪ ১৪২৯

  • || ০৪ রজব ১৪৪৪

বিদেশিদের মন্তব্যে বিরক্ত সরকার

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত: ২৬ নভেম্বর ২০২২  

জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে কূটনীতিকপাড়ায় আনাগোনা বেড়েছে রাজনৈতিক দলগুলোর। শুধু তাই নয়, বিভিন্ন সময়ে নানা অনুষ্ঠানে নির্বাচন প্রসঙ্গে প্রকাশ্যে দেওয়া বক্তব্যের কারণে বিতর্কেও জড়িয়ে পড়ছেন বিদেশি মিশনপ্রধানরা। এতে বিরক্ত সরকার। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এ জন্য কূটনীতিকদের ডেকে, চিঠি দিয়ে ও গণমাধ্যমে বক্তব্য দিয়ে সতর্ক করা হচ্ছে। অন্যদিকে, এ ধরনের বক্তব্যকে দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ বলে মনে করছেন আন্তর্জাতিকবিষয়ক বিশেষজ্ঞ ও নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা। তাদের মতে,  বিদেশি কূটনীতিকদের এ ধরনের অযাচিত মন্তব্য অশুভ লক্ষণ।

জানা যায়, সম্প্রতি জাপান, কানাডা, যুক্তরাষ্ট্র ও জাতিসংঘ বাংলাদেশের নির্বাচন ও মানবাধিকার নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। আগামী নির্বাচনে তারা সব দলের অংশগ্রহণ দেখতে চেয়েছে। দাবি তুলেছে স্বচ্ছ নির্বাচনের। বক্তব্য দিয়েছেন তুরস্ক ও দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূতও। এর মধ্যে জাপানের রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যে রীতিমতো তোলপাড় হয়েছে সরকারের অভ্যন্তরে। বিশেষত একটি বেসরকারি সংস্থার বিশেষ আয়োজনে রাষ্ট্রদূতরা এ ধরনের বক্তব্য বেশি দিচ্ছেন। সেখানে গণমাধ্যমের বাইরে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিরাও রাষ্ট্রদূতদের কাছে প্রশ্ন করছেন। রাষ্ট্রদূতরা বাংলাদেশের নির্বাচন, গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের মতো বিষয়গুলো নিয়ে মন্তব্য করছেন। সাম্প্রতিক সময়ে শুরু হওয়া এই সংস্থার সিরিজ অনুষ্ঠানে দেওয়া এসব বক্তব্য গণমাধ্যমে আসার পরই তা সরকারের নজরে আসে। এরপর ওই সংস্থার একটি বড় আয়োজনে সরকারের একাধিক মন্ত্রীকে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হলেও তাতে সাড়া দেননি কেউই। শেষ মুহূর্তে নিজেদের ওসব অনুষ্ঠান থেকে সরিয়ে নেন সরকারের প্রতিনিধিরা। এর আগেই জাপানের রাষ্ট্রদূতকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ডেকে তার ‘বিস্ফোরক’ মন্তব্য নিয়ে জানতে চেয়েছিল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। অভ্যন্তরীণ বিষয়ে এসব কথা মন্ত্রণালয় যে ভালোভাবে নেয়নি, তাও বুঝিয়ে দেওয়া হয় তাকে। এরপর পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বিদেশি রাষ্ট্রদূতদের নিয়ম-রীতি-আইন অনুযায়ী দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানিয়েছেন। সেই সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশে কাজ করা বিদেশি কূটনীতিকদের কাছে মতামত চাওয়ার সংস্কৃতিও বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছেন একাধিক দফায়। জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, বাংলাদেশে জাতীয় নির্বাচনের সময় ঘনিয়ে এলে বিদেশি কূটনীতিকদের কথাবার্তা বেড়ে যাওয়ার ঘটনা নতুন নয়। আগের বেশ কয়েকটি নির্বাচনেও এমনটি দেখা গিয়েছিল। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র ও জাপানের রাষ্ট্রদূত সংবাদ সম্মেলন ডেকে কোনো মন্তব্য করেননি। যেসব বৈঠক বা আয়োজনে তারা এসব কথা বলেছেন, সেসব অনুষ্ঠানের আয়োজন যারা করছেন এবং রাষ্ট্রদূতদের মন্তব্য করার সুযোগ করে দিচ্ছেন, তাদের রাজনীতিটা আগে বোঝা দরকার। ড. ইমতিয়াজের মতে, নিঃসন্দেহে এখনো আমাদের গণতন্ত্রে কিছু ঘাটতি রয়েছে। কিন্তু সেই ঘাটতি পূরণের জন্য বাইরের দেশের কেউ এসে মধ্যস্থতা করবে, এই মানসিকতা কেন তৈরি হলো, সেটি আমি বুঝতে পারছি না। মনে রাখতে হবে, বাংলাদেশের রাজনীতির মধ্যে কোনো ধরনের বিভাজন থাকলে সেই বিভাজনের সুযোগ আন্তর্জাতিক মহল নিতে চাইবে। তারা তাদের স্বার্থ হাসিলের জন্য দর-কষাকষি করার সুযোগ খুঁজতে চাইবে। তারা তাদের স্বার্থ ব্যতীত আমাদের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করে না। আবার এটিও মনে রাখতে হবে, তাদের মাধ্যমে কিন্তু দেশের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা পায় না। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা পায় দেশের জনগণের লড়াইয়ের মাধ্যমে। অতীতেও আমরা তাই দেখেছি। জনগণ রাস্তায় নেমেই কিন্তু গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছে। সাবেক রাষ্ট্রদূত হুমায়ূন কবির বলেন, বিদেশিরা যাতে আমাদের বিষয়ে কথা বলতে না পারেন, সে সুযোগ আমাদের বন্ধ করা প্রয়োজন। আমাদের বহু ভালো বিষয় আছে, যেগুলো নিয়ে বিদেশিরা কথা বলতে পারেন। যে ঘাটতিগুলো আছে তা পূরণ করলেই সেসব বিষয়ে তাদের আর কথা বলার সুযোগ থাকবে না। সুশাসনের যে ঘাটতি আছে তা দূর করলেই তারা কথা বলার সুযোগ পাবেন না। তিনি বলেন, আমাদের রাজনৈতিক সংস্কৃতির যে ঘাটতি আছে তা কেউ বলুক বা না বলুক দূর করা প্রয়োজন। কারণ একটা টেকসই গণতান্ত্রিক কাঠামো গড়ে আমাদের অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাওয়া প্রয়োজন।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) আবদুর রশীদের মতে, কূটনৈতিক বিষয়ে প্রত্যেকটি দেশে কিছু অভ্যন্তরীণ বিষয় রয়েছে। সেগুলোতে অন্য দেশের হস্তক্ষেপ করা কোনোভাবেই কাম্য নয়। আর আমরা সব সময় দেখে আসছি এ বিষয়গুলো তখনই ঘটে যখন রাজনৈতিক বিভক্তি দেখা দেয়। তখন কিছু রাজনৈতিক ব্যক্তি বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ কিছু গোপন বিষয় বিদেশিদের জানিয়ে দেন। এটি খুবই অশুভ লক্ষণ। তারা ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলকে চাপ সৃষ্টি করার জন্য সব ধরনের সহযোগিতা করে থাকে। সম্প্রতি আমরা দেখেছি বাংলাদেশের নির্বাচন ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়ে বিদেশিরা কথা বলছেন। এর মানে হচ্ছে এসব অনিয়মের কিছু দলিল তাদের হাতে এসে পৌঁছেছে। তাই তারা জোর দিয়ে কথা বলছেন। এটি কোনোভাবেই ভালো বিষয় নয়।