বৃহস্পতিবার   ২৪ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৮ ১৪২৬   ২৪ সফর ১৪৪১

তারেকের নির্দেশে কামাল হোসেনকে হত্যার নীলনকশা

কুমিল্লার ধ্বনি

প্রকাশিত : ০৬:৫৪ পিএম, ২৬ ডিসেম্বর ২০১৮ বুধবার

বিভিন্ন সময়ে বিএনপি তাদের রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে শাহ এ এম এস কিবরিয়ার মতো বাংলাদেশের অনেক কৃতি রাজনীতিবিদকে হত্যা করেছে। আর প্রত্যেকটি হত্যাকাণ্ডের রাজনৈতিক সুবিধা ভোগ করেছে তারা। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকেও হত্যার উদ্দেশ্যে কয়েকবার হামলা করেছে তারা।


আসন্ন একাদশ জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে টাকার বস্তা নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণার মাঠে নেমেছে বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা। এ খবর এখন বেশ পুরোনো, নতুন খবর হলো নির্বাচনী প্রচারণায় বস্তা বস্তা টাকা ঢেলে কাজ না হলে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান রাজনৈতিক আখের গোছানোর জন্যে কামাল হোসেনকে হত্যা করার পরিকল্পনা করছেন।
সম্প্রতি, গণফোরামের মহাসচিব মোস্তফা মহসিন মিন্টুর সঙ্গে শওকত নাম এক ব্যক্তির ফোনালাপ ফাঁস হয়। ফাঁস হওয়া ফোনালাপে শওকত নামের ওই ব্যক্তি মোস্তফা মহসিন মিন্টুকে অতিসত্বর কামাল হোসেনকে কোনো নিরাপত্তা হেফাজতে নিয়ে যাওয়ার জন্য বলেন। কামাল হোসেনকে বিএনপি নেতারা কখনও নিজেদের দলের কেউ মনে করেনি। তাই নিজেদের রাজনৈতিক আখের গোছাতে এবং বিএনপির প্রতিদ্বন্দ্বী রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার জন্যে তারা নির্বাচনের আগেই কামাল হোসেনকে হত্যার পরিকল্পনা করছে। ইতোমধ্যে কামাল হোসেনকে হত্যার উদ্দেশ্যে দুবাই থেকে সাতজন পাকিস্তানি ভাড়াটে খুনী বাংলাদেশে পৌঁছে গিয়েছে বলে জানান তিনি। লন্ডন থেকে তারেক রহমানের এক বিশ্বস্ত সূত্র মারফত তিনি এসব কথা জানতে পারেন বলেও জানান তিনি।


বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের হত্যার পেছেনে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের হাত ছিল। এবার তারেক রহমান তার রাজনৈতিক ফায়দা লুটার জন্যে এমন এক ব্যক্তিকে হত্যার পরিকল্পনা করছেন যার কারণেই বিএনপি খাদের কিনারা থেকে উঠে এসে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে পারছে। যদিও ভাত খেয়ে থালা ফুটো করার প্রবণতা তারেক রহমান ও বিএনপির স্বভাবগত। যে দলটির জন্মই হয়েছিল ‘নভেম্বর বিদ্রোহ’ নামের এক নারকীয় হত্যাকাণ্ডের পরবর্তী সময়ে, সে দলটির সর্বোচ্চ নেতার নিকট থেকে এর থেকে কম কিছু আশা করা যায় না।